উল্টো রাজা উল্টো বুঝলি প্রজার দেশে

যে যা-ই বলুক, চোখ কান খোলা রাখলে বেশ টের পাওয়া যাচ্ছে পশ্চিমবঙ্গ মোটেই কোরোনা সামলাতে যা করা উচিৎ তা করছে না। বেশি কড়া কথা বলা হয়ে যাচ্ছে মনে হলে একটু নরম করে বলা যেতেই পারে করতে পারছে না। তা বলে কেন্দ্রীয় সরকার সংবিধান, যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামো ইত্যাদির তোয়াক্কা না করে জেলায় কী হচ্ছে সে সম্বন্ধে ভাষণ দেবে আর খবরদারি করতে কেন্দ্রীয় দল পাঠাবে — তাও সমর্থনযোগ্য নয়।

লক্ষণীয়, গত দুদিনে কেন্দ্রীয় সরকার কতকগুলো জায়গা সম্বন্ধে আলাদা করে বলেছে সেখানে উদ্বেগজনক অবস্থা। প্রত্যেকটা জায়গাই অ-বিজেপি শাসিত রাজ্যে — কলকাতা, মুম্বাই, জয়পুর, ইন্দোর। কলকাতার (এবং হাওড়ার) অবস্থা আমরা আশেপাশের লোকেরা জানি, তাই বাদ দিন। কিন্তু বাকিগুলো ভাবুন।

শুরু থেকেই দেশে সবচেয়ে বেশি টেস্ট করছে কেরালা আর মহারাষ্ট্র। স্বভাবতই ও দুটো রাজ্যে কোরোনা আক্রান্ত রোগীও বেশি পাওয়া যাচ্ছে৷ মুম্বাই মহারাষ্ট্রের রাজধানী। জয়পুর রাজস্থানে। যে রাজ্যের ভিলওয়ারাকে কদিন আগে মডেল বলেছে কেন্দ্রীয় সরকার নিজেই। সেখানে কোরোনা রোগীর সংখ্যাও কিছু অস্বাভাবিক গতিতে বৃদ্ধি পাচ্ছে না। ইন্দোর মধ্যপ্রদেশে। সে এমন এক রাজ্য যেখানে এখন অব্দি আস্ত ক্যাবিনেট নেই, স্বাস্থ্যমন্ত্রী নেই। কংগ্রেস সরকারকে সরিয়ে সবে বিজেপি সরকার শপথ নিয়েছে, তখনই লকডাউন শুরু হল। সেখানে মাঝে কয়েকদিন প্রচুর কোরোনা রোগী পাওয়া যাচ্ছিল, হঠাৎই কমতে শুরু করেছে। ভোজবাজির মত।

এর পাশাপাশি যদি বিজেপিশাসিত রাজ্যগুলোর দিকে চোখ রাখা যায়, দেখা যাবে উত্তরপ্রদেশে ঠিক কী হচ্ছে আমরা জানি না। তবলিগি জামাতের জমায়েত নিয়ে দিনরাত এত দুশ্চিন্তা আমাদের, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক নিয়মিত আপডেট দিচ্ছে ওখান থেকে কতজনের কোরোনা হয়েছে, অথচ লকডাউন শুরু হওয়ার পর রামনবমীর দিন অযোধ্যার অনুষ্ঠান থেকে কতজনের কোরোনা হয়েছে তার কোন পরিসংখ্যান আমরা পাচ্ছি না। উত্তরপ্রদেশে প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ীই কিন্তু সহস্রাধিক আক্রান্ত। তা নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকার চিন্তিত নন। উত্তর-পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলো সর্বদা দেশী বিদেশী পর্যটকে ভরে থাকে, অথচ ওদিকে একেকটা রাজ্যে দুজন, পাঁচ জন, দশ জন করে আক্রান্ত। অর্থাৎ ঐ রাজ্যগুলো বাকিদের জন্য অনুকরণীয়। তাহলে কেন্দ্রীয় সরকার বাকিদের ওদের থেকে শিখতে বলছেন না কেন, তাও পরিষ্কার নয়। ফলত কিছু রাজ্যের জন্য এই দুশ্চিন্তাকে লর্ড ডালহৌসির করদ রাজ্যগুলোর প্রজাদের জন্য দুশ্চিন্তার বেশি কিছু ভাবা শক্ত হয়ে দাঁড়াচ্ছে।

আসলে রাজ্য সরকার মানে যে কেন্দ্রীয় সরকারের অধীনস্থ অফিস নয়, তা বর্তমান সরকার মোটেই মানতে চান না।সংবিধানকে মারো গুলি। কেনই বা মারবেন না? আমাদের সংবিধান যে নিতান্ত ফেলে দেওয়ার মত একটা জিনিস সে সিদ্ধান্ত এ দেশে হয়েই গেছে। পাড়ার “আমি কিন্তু বিজেপি নই” দাদা বা দিদির সাথে কথা বললেই বুঝতে পারবেন।

অবশ্য প্রধানমন্ত্রীকে মুখ্যমন্ত্রীর প্রভু ভাবার অভ্যেসটা যারাই শক্তিশালী কেন্দ্রীয় সরকার চালিয়েছে তাদেরই বিলক্ষণ ছিল। রাজ্যপালকে দিয়ে দিনরাত বিরোধী দলের রাজ্য সরকারের পিছনে লাগা, সরকার ভেঙে দেওয়া, কাজে বাধা সৃষ্টি — সবই শুরু হয়েছে সেই বাজপেয়ীর দুর্গা ইন্দিরার আমলে। বরাবর কেন্দ্রের দাদাগিরি নিয়ে সবচেয়ে সোচ্চার ছিলেন বামপন্থীরা। তাঁরা রাজ্যগুলোকে আরো ক্ষমতা দিতে এমনকি সংবিধান সংশোধন চাইতেন, ৩৫৬ ধারার বিলোপ চাইতেন। এ সবের জন্য বাঙালির দৈনিক বেদ যারপরনাই গালাগাল দিয়েছে বামেদের। বলেছে এরা কাজ করতে চায় না বলে কেন্দ্রীয় সরকারের দিকে আঙুল তোলে।

একবার তো এক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হুমকিই দিয়েছিলেন যে তাঁর দল লোকসভায় ৩.৫৬% ভোট পেয়েছে, তাই তিনি প্রধানমন্ত্রীকে দিয়ে পশ্চিমবঙ্গে ৩৫৬ জারি করিয়ে দেবেন। নামটা গুগল করলে পেয়ে যাবেন। শেষ বামফ্রন্ট সরকারের আমলে তিনিই আবার বলেছিলেন পি এম টু ডি এম কাজ হওয়া উচিৎ, রাজ্য সরকারকে মানব না।

এরকম অনেক দৃষ্টান্ত আছে। কিন্তু কোন দুষ্কর্মই আগে অন্য লোক করেছে বলে বৈধ হয়ে যায় না। ফলত কেন্দ্রীয় সরকারের এই “চালুনি বলে ছুঁচ, তোর পিছে কেন ছ্যাঁদা” মার্কা তৎপরতাকে কোন যুক্তিতেই মহৎ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে ভাবা সম্ভব হচ্ছে না। “এই সময়ে রাজনীতি করবেন না” কথাটাও নেহাত খিল্লি হয়ে দাঁড়াচ্ছে। বরাবর দেখা যায় রাজনীতিকে ভাইরাসের মত পরিহার করতে বলে তারাই যারা ক্ষমতাশালী, কারণ রাজনীতি বন্ধ করতে পারলে ক্ষমতা নিরঙ্কুশ হয়। এক্ষেত্রেও ব্যাপারটা তাই। কেন্দ্র, রাজ্য উভয় সরকারের ব্যবহারই তা প্রমাণ করে। রাজ্যের ব্যবহার নিয়ে না হয় আরেকদিন কথা হবে। পিঠটাও তো বাঁচাতে হবে।

সত্য; তবু শেষ সত্য নয়

আসাম জ্বলছে। অসমিয়াদের বক্তব্য ওঁদের ভাষা, সংস্কৃতি সব বাংলাদেশ থেকে আসা বাঙালিরা ধ্বংস করে দিচ্ছে। নাগরিকত্ব আইন সংশোধন করে সেই অনসমিয়াদের নাগরিক অধিকার দেওয়া হয়েছে। তার বিরুদ্ধে ওঁরা রাস্তায়। যারা নাগরিকত্ব আইনের এই নব কলেবরের বিরুদ্ধে কারণ এতে ধর্মের ভিত্তিতে নাগরিকত্ব দেওয়া হচ্ছে, উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবেই ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের বাদ রাখা হচ্ছে — তারাও ক্রমশ রাস্তায়, ক্রমশ একজোট।

লড়াইটা লম্বা। লড়াইটা কেবল নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে নয়, জাতীয় নাগরিকপঞ্জীর বিরুদ্ধেও। এবং স্পষ্ট করে বলা যাক, নাগরিকত্ব সংবিধানের কেন্দ্রীয় তালিকার বিষয়। ফলে যে যে রাজ্য সরকার এই আইন প্রয়োগ করব না বলছেন তাঁরা আদর্শগত অবস্থান জানাচ্ছেন মাত্র। তাঁরা কাউকে নাগরিকত্ব দিতে পারেন না, অতএব না দেওয়ারও প্রশ্ন নেই। কিন্তু রাজ্য সরকারগুলো অবশ্যই জাতীয় নাগরিকপঞ্জী (NRC) আটকাতে পারেন। কারণ ব্যবহারিক কারণেই রাজ্য সরকারের সহযোগিতা ছাড়া কাজটা করা মুশকিল। সত্যিই যদি কোন রাজ্য সরকার অসহযোগ করতে চান তাহলে সেটা NPR থেকেই শুরু করতে হবে। আশাব্যঞ্জক যে বহু মুখ্যমন্ত্রী ইতিমধ্যেই বলেছেন NRC করতে দেবেন না। তবে সেই কথাকে কজন কাজে পরিণত করবেন সেটাই আসল কথা।
পরিষ্কার করে এটাও বলা দরকার যে নতুন আইনের বিরোধিতাকে যে হিন্দুবিরোধিতা বলে দেগে দেওয়া হচ্ছে সেটাও বিশুদ্ধ বদমাইশি। একজন বিরোধীও বলেননি “হিন্দু, বৌদ্ধ, শিখ, জৈন, পারসিক শরণার্থীদের নাগরিকত্ব দেওয়া অন্যায়।” বরং সকলেই বলেছেন “বেছে বেছে মুসলমানদের বাদ দেওয়া অন্যায়।” উত্তর পূর্বাঞ্চলের বাঙালিবিদ্বেষী প্রতিবাদ ছাড়া কোন প্রতিবাদ শরণার্থীদের নাগরিকত্ব দেওয়ার প্রতিবাদ নয়।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী যে রাজ্যসভায় বললেন এই আইন নিয়ে যারা ইতিমধ্যেই নাগরিক তাদের দুশ্চিন্তা করার কিচ্ছু নেই — সেটা ধূর্ততা। সত্যিই তো। সংশোধিত আইন তো যারা আগে থেকেই নাগরিক তাদের সম্বন্ধে নতুন কিছু বলছে না, বলছে যারা নাগরিক ছিল না তাদের সম্বন্ধে। খবরের কাগজের পাতা জোড়া বিজ্ঞাপনে যে লেখা হয় চোদ্দ হাজার টাকার জিনিস চোদ্দশো টাকায় পাওয়া যাচ্ছে, তা যতটা সত্যি, অমিত শাহ যা বলেছেন তাও ততটাই সত্যি। পাতার একেবারে তলায় প্রায় আণুবীক্ষণিক হরফে লেখা থাকে “শর্তাবলী প্রযোজ্য”। ওটা দেখতে না পেয়েছেন কি মরেছেন। এই নাগরিকত্ব আইনের “শর্তাবলী প্রযোজ্য” মানে হল “এরপর নাগরিকপঞ্জী তৈরি করা হবে। তখন বুঝে নেব কে কে কবে কোথা থেকে এসেছ। পছন্দ না হলেই নাগরিকত্ব বাতিল।”

কাদের পছন্দ হবে না তা বুঝতে ফেলুদা বা ব্যোমকেশ হওয়ার দরকার নেই। নতুন নাগরিকত্ব আইনেই বলা আছে। তার পরেও যদি ঘেঁটু ফুলের মত নিষ্পাপ কেউ থেকে থাকেন তার জন্যে অমিত শাহ রাজ্যসভায় পরিষ্কার করে বলে দিয়েছেন, আপনাদের দাবীটা কী রে বাপু? দুনিয়ার যেখান থেকে যত মুসলমান আসবে সবাইকে নাগরিকত্ব দিতে হবে নাকি? এর জবাবে বাংলার সাংসদ ডেরেক ও ব্রায়েন চমৎকার বক্তৃতা দিলেন, এমনকি আমাদের ঠাকুর মানে রবীন্দ্রনাথ — সেকথাও বললেন। ভাল হত ‘ভারততীর্থ’ কবিতায় ভারতীয় কারা তার যে সংজ্ঞা আছে সেটাও শুনিয়ে দিলে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আজ অব্দি একটা ভাল বই পড়েননি বলে সারা জীবন অশিক্ষিত হয়ে থাকবেন এ কি ভাল কথা? যাকগে।

কথা হচ্ছে ইতিহাস না পড়লে বা ভুলে মেরে দিলে (আমাদের উচ্চশিক্ষিত লোকেদের অনেকেই যা করেছে বলে আজকাল দেখতে পাচ্ছি) যা হয় সঙ্ঘ পরিবার তথা আমাদের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীরও তা-ই হয়েছে। এত বয়সে ফের ইতিহাস পড়তে যাওয়া কষ্টসাধ্য, তাই ঐ পাতা দুয়েকের কবিতাটার কথা বলছিলাম। পড়লে বোঝা যায় ভারত এমন এক দেশ যেখানে “সবারে হবে মিলিবারে আনতশিরে।” মিলতে হবে, মেলা যাবেও। কিন্তু মাথা নীচু করে সবার সমান হয়ে। আঙুল উঁচিয়ে সবাইকে এক করতে গেলে যা হয়, বিজেপি আমলে তা-ই হচ্ছে।

সবাইকে হিন্দু হতে হবে, সবাইকে হিন্দি বলতে হবে আমাদের হিন্দুস্তানে। এই আর এস এস প্রকল্প লাগু করতে গিয়ে কাশ্মীরকে বন্দুক আর ট্যাঙ্ক দিয়ে শান্ত রাখতে হয়েছে। এখন আবার আসামকে বন্দুক দেখাতে কাশ্মীর থেকে সেনা ডেকে আনতে হচ্ছে। সম্পর্কটা খেয়াল করুন। এক দেশ দুই আইন নাকি অন্যায় — এই যুক্তিতে সংবিধানের ৩৭০ ধারা বিলোপ করা হল। এদিকে নতুন নাগরিকত্ব আইনের আওতার বাইরে রাখা হল উত্তর পূর্বাঞ্চলের কয়েকটি রাজ্য, কিছু অঞ্চলকে। কেন? কারণ ভারতের সব রাজ্যের ইতিহাস এক নয়, আশা আকাঙ্ক্ষা এক নয়। ঐ রাজ্যগুলোর আদি নিবাসীদের দীর্ঘকালীন আশঙ্কা বাইরে থেকে লোক এলে তাঁদের স্বাতন্ত্র্য হারিয়ে যাবে, সে তারা যে ধর্মের লোকই হোক। বিজেপি যদি বলে কেউ অন্য দেশ থেকে ঐ রাজ্যগুলোতে এলেই নাগরিকত্ব পাবে, তাহলে যাকে গোদা বাংলায় বলে “এক ঘাও মাটিতে পড়বে না।” কত সেনা আছে তোমার? কোথায় কোথায় দাঁড় করাবে?

এই বাস্তব ভারত রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতারা, মানে যাঁদের আজকাল লম্পট, চামার, মুসলমানদের এজেন্ট, ব্রিটিশ এজেন্ট ইত্যাদি বলা হয়, তাঁরা জানতেন। সেই কারণেই হাতুড়ি পিটিয়ে এক দেশ, এক আইনের নির্বোধ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করতে যাননি। অমিত শক্তিধর শাহকে উত্তর পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলোকে বাইরে রাখার জন্যেও সেই লম্পট দুশ্চরিত্র লোকগুলোর তৈরি সংবিধানের ষষ্ঠ তফসিলেরই দোহাই দিতে হয়েছে।

কিন্তু আসামকেও তাহলে ছাড় দেওয়া হল না কেন? হয়েছে। উপজাতি এলাকাগুলোকে ছাড় দেওয়া হয়েছে, কারণ ষষ্ঠ তফসিল সেই এলাকাগুলোর কথাই বলে। বাকি আসামের জন্যে সরকার অমন ব্যবস্থা করল না কেন? করলেই তো অসমিয়ারা আর আপত্তি করতেন না, তাই না? করতে যে পারল না সেখানেই ভারতবর্ষ নামক সাড়ে বত্রিশ ভাজার মজা। আসামে কোটি খানেক বাঙালি, তার অনেকেই আবার হিন্দু। NRC তে তাদের অনেকেই বাদ পড়েছে। প্রতিক্রিয়ায় পশ্চিমবঙ্গে দেশপ্রেমিক নেতৃবৃন্দ তাড়া খেয়েছেন, দুষ্টু লোকে বলে চড় থাপ্পড়ও খেয়েছেন। খেতে খেতে নাগরিকত্ব আইনের খুড়োর কল দেখিয়েছেন। এখন যদি অসমিয়া হিন্দুদের না বাঁচান তাহলে পশ্চিমবঙ্গে… ঐ যে… এক ঘা…।

এই গল্পের নীতিবাক্যগুলো কী তাহলে?

১) ভারত এক ধর্মের দেশ নয়, এক ভাষার দেশ নয়, এক আইন সর্বত্র প্রয়োগ করাও যাবে না এখানে। এ এমন এক দেশ যেখানে এক কোণে যে সংখ্যাগুরু, অন্য কোণে সে-ই সংখ্যালঘু।

২) সকলেই যে গেরুয়া দেশপ্রেমিকদের মত নিজের ধর্মীয় পরিচিতিকেই সবচেয়ে উপরে স্থান দেয় তা-ও নয়। অমর্ত্য সেন বলে এক অ্যান্টিন্যাশনাল একটা বইতে লিখেছে একজন মানুষের অনেকগুলো পরিচয় থাকে। এ দেশের বহু লোক বইটা না পড়েও ব্যাপারটা নিজের জীবনে পালন করে। এখানে একটা পরিচিতির উপর ভর দিয়ে ভেদাভেদ তৈরি করতে গেলে অন্য একটা পরিচিতি সব গুবলেট করে দিতে পারে। (উফ! আবার বইয়ের কথা বলে ফেললাম। এত পড়লে মন্ত্রীরা কাজ করবেন কখন?)

যারা মনে করে ভারত সকলের জন্য তাদের বছর আষ্টেক খুব খারাপ কেটেছে। এমন নয় যে তার আগে ভারতে সাম্প্রদায়িক রেষারেষি, হানাহানি ছিল না। কিন্তু সেগুলো ছিল আইনত নিষিদ্ধ, সামাজিকভাবে অস্বীকৃত। কিন্তু হিন্দুত্ববাদের রমরমায় গত কয়েক বছরে সাম্প্রদায়িকতা প্রথমে সামাজিক স্বীকৃতি পেল, তারপর আইনগত বৈধতা পেল। তারপর অর্থনীতি যখন তলানিতে, গণতান্ত্রিক অধিকার যখন ভূলুণ্ঠিত — এরকম একটা সময়ে নাগরিকত্ব আইনের এই সংশোধন সাম্প্রদায়িকতাকে সাংবিধানিক স্বীকৃতি দিল

সবটাই হতে পারল কারণ আমাদের চারপাশের মানুষেরা হয় পরধর্মবিদ্বেষী, পরজাতিবিদ্বেষী হয়ে উঠলেন, নয় যাবতীয় অন্যায়ের প্রতি উদাসীন হয়ে রইলেন। মৌনং সম্মতি লক্ষণম।

সেদিক থেকে গত কয়েক দিনের ঘটনাবলী কিন্তু নতুন আশার সঞ্চার করেছে। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে মানুষ দ্রুত জড়ো হচ্ছেন, প্রতিবাদ করছেন। দীর্ঘ বিশ তিরিশ বছর ধরে লালিত আন্দোলনবিরোধী, প্রতিবাদবিরোধী সংস্কৃতির জাল ছিঁড়ে এমন মানুষ মিছিলে নেমে পড়ছেন যাঁরা চিরকাল এসবের থেকে সযত্নে দূরে থেকেছেন। তার মানে তাঁরা বিপদটা বুঝছেন। অনেকে নিজে নিজেই বুঝে নিচ্ছেন, কেউ বা সাগ্রহে জেনে নিচ্ছেন। প্রশ্ন করলেই আক্রান্ত হওয়ার কালে দাঁড়িয়ে এ কি কম কথা?

তবে এই আশাবাদে লাগাম পরানো দরকার। গত দুদিনের প্রতিবাদে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়েরই প্রধানত অংশগ্রহণ দেখে অনেকেই নাক সিঁটকোচ্ছেন। “ওটা তো ওদের প্রতিবাদ”। তা বন্দুকের নলের ঠিক সামনে যখন “ওরা” আছে তখন প্রতিবাদ করার তাগিদ “ওদের” থাকবে বই কি। কিন্তু আপনি যদি বুঝে থাকেন বিপদটা কোনখানে, যদি বুঝে থাকেন আসলে CAB, NRC ভারতের বিরুদ্ধেই অন্তর্ঘাত তাহলে আপনিও এসে দাঁড়ান। ভারত তো আপনারও। এবং ভুলেও মনে করবেন না মুসলমান না হলেই আপনি নিরাপদ। আসামের বাঙালি হিন্দুদের দেখে শিখুন। নগর পুড়লে দেবালয় এড়ায় না। আসলে আপনিও হিন্দি হিন্দু হিন্দুস্তানের উদ্যত থাবার আওতায় থাকা বাঙালি। আর যদি না আসেন তাহলে দেশের শত্রুদের পক্ষে সহজ হবে বলে দেওয়া যে এই আন্দোলনে মুসলমান ছাড়া কারো কিছু এসে যায় না। রেল অবরোধে, উত্তেজনায় সাম্প্রদায়িক হিংসার তকমা সেঁটে দেওয়া জলভাত হয়ে দাঁড়াবে, দাঙ্গা বাধানো সহজ হয়ে যাবে। তাতে শুধু আপনি নয়, ডাহা ফেল করবে ভারতবর্ষ।

আন্দোলনের ফলে রাতারাতি কিন্তু কিছু হবে না। রাত সবে শুরু। আরো গভীর হবে। আন্দোলন জোরদার হলে কাশ্মীর বা আসামের মত বাংলারও কণ্ঠরোধ হতেই পারে। খুব বেশি রাজ্যে প্রতিরোধ ছড়িয়ে পড়লে NRC করতে বদ্ধপরিকর সরকার কতটা দমন পীড়নের পথে যাবে কেউ বলতে পারে না। সরকারের পুলিশ আছে, সেনাবাহিনী আছে, না জানি আরো কত কী আছে! আমরা অবয়বহীন দেড়শো কোটি। আমাদের আমরা ছাড়া আর কিছু নেই। সে নেহাত ফেলে দেওয়ার মত শক্তি নয়, উপস্থিত নানাবিধ বিদ্বেষে শতধাবিভক্ত হলেও।
তাই অন্ধকারের আজকের সফলতা সত্য; তবু শেষ সত্য নয়।

ব্যর্থ নমস্কার

প্রথমে ভেবেছিলাম এই বিষয়ে একটা লাইনও লিখব না। প্রবৃত্তি হচ্ছিল না। বাস্তবিক যা ঘটেছে এবং ঘটছে তা দেখে বমি পাচ্ছিল। কিন্তু শেষ অব্দি ভেবে দেখলাম ইতরামির স্বর্ণযুগে প্রবৃত্তির দোহাই দিয়ে চুপ করে থাকা অপরাধমূলক কাজ। যারা ভালবাসো, অন্তর হতে বিদ্বেষ বিষ নাশো ইত্যাদি ভাল ভাল কথা বলেছিলেন, দুর্দিনে দাঁড়িয়ে আমাদের কবীন্দ্র স্বয়ং তাঁদের ব্যর্থ নমস্কারে ফিরিয়ে দিয়েছেন। আমি কোন হরিদাস পাল? তাই সংক্ষেপে কয়েকটা কথা বমি করার মত করেই উগরে দিই।
ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের মূর্তি কেন ভাঙা হয়েছে তা নিয়ে কোন সন্দেহের অবকাশ নেই। অত বিশালকায় বাঙালি আর কে-ই বা আছেন? ওঁকে না ভাঙলে বাংলাকে কী করে ভাঙা যাবে? আমার নিজের অন্তত কারা ভেঙেছে তা নিয়েও কোন সন্দেহ নেই, যতক্ষণ না তদন্ত অন্যরকম প্রমাণ করছে। কিন্তু বলার কথা এই যে বাঙালির ভণ্ডামি যারা মূর্তি ভেঙেছে তাদেরই হাত শক্ত করছে।
যত লোক ফেসবুকে বিদ্যাসাগরকে ডিপি বানিয়েছে তার অর্ধেকও যদি ফেসবুকে বাংলায় পোস্ট করার অভ্যাস রাখত, হোয়াটস্যাপে বাংলায় চ্যাট করত তাহলে বাংলার রাজধানীতে বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙার সাহস কারো হত না। কলকাতা জুড়ে কয়েকশো ইংরিজি মাধ্যম স্কুল। সেই স্কুলে পাঠরত লক্ষ লক্ষ বাঙালি ছেলেমেয়ে যদি অন্তত দ্বিতীয় ভাষা হিসাবেও বাংলা পড়ত, তাহলে আমাদের বিদ্যাসাগরকে নিয়ে গদগদ হওয়ার একটা মানে থাকত। কিন্তু তারা পড়ে হিন্দি। বাবা-মায়েরা গর্ব করেন “জানেন দাদা, আমার ছেলের বাংলাটা ঠিক আসে না।“ এদিকে বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙা হয়েছে বলে লোকে কেঁদে ভাসাচ্ছে।
রাজ্যের বাংলা মাধ্যম স্কুলগুলো শিক্ষক শিক্ষিকার অভাবে ধুঁকছে, ছাত্রছাত্রীর অভাবে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। বেশিদিন আগের কথা নয়, স্বয়ং বিদ্যাসাগরের প্রতিষ্ঠা করা স্কুল বন্ধ হয়ে যেতে বসেছিল। আমাদের মধ্যে যাঁদের কথা কম, কাজ বেশি তাঁরা আপাতত বাঁচিয়েছেন। আমরা কেউ সেসব নিয়ে ভাবি? বিদ্যাসাগর অবিভক্ত বাংলায় ঘুরে ঘুরে স্কুল স্থাপন করেছিলেন। কেন? যাতে শিক্ষার আলো সবচেয়ে প্রত্যন্ত গ্রামে, সবচেয়ে গরীব মানুষটার ঘরেও পৌঁছায়। এবং সেটা সম্ভব একমাত্র জোরালো সরকারপোষিত শিক্ষাব্যবস্থা থাকলে তবেই। অথচ আমাদের এখানে সরকারী শিক্ষাব্যবস্থার মুমূর্ষু অবস্থা নিয়ে আমাদের কারোর মাথা ব্যথা আছে? বেসরকারী স্কুলগুলোর বেশি ফি এর জন্যে মুখ্যমন্ত্রী একদিন মালিকদের ডেকে ধমকালেই তো আমরা খুশি। বিদ্যাসাগরের শিক্ষা গোল্লায় যাক, যতক্ষণ হাতে কলমে মূর্তি না ভাঙা হচ্ছে ততক্ষণ সব ঠিক আছে। মাস দুয়েক আগে কলকাতা শহরের বুকে শিক্ষক পদপ্রার্থীরা রোদ বৃষ্টি মাথায় করে না খেয়ে রাস্তায় বসেছিলেন। একদিন দুদিন নয়, আঠাশ দিন। কজন গিয়ে দাঁড়িয়েছিলেন আর কটা ফেসবুক পোস্ট দেখেছি পরিষ্কার মনে আছে। শিক্ষকের দুঃখে যার প্রাণ কাঁদে না সে কিরকম বিদ্যাসাগরপ্রেমী?
আরো মোটা দাগে বলব? বিদ্যাসাগরের প্রতিকৃতিরও কম অসম্মান কলকাতার বুকে মূর্তি ভাঙার আগে থেকেই হয়নি। লুকিয়ে চুরিয়ে হয়নি, আমার আপনার চোখের সামনেই হয়েছে। আমরা প্রতিবাদ করিনি, আমাদের অগ্রগামী শিল্পী, সাহিত্যিক, অধ্যাপকরাও করেননি। গোটা শহর ছেয়ে গেছে বিভিন্ন মনীষীদের উক্তি সম্বলিত হোর্ডিংয়ে, যার মধ্যে বিদ্যাসাগরও আছেন। সঙ্গের ছবিটি কিন্তু সেই মনীষীদের নয়, মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রীর। আরেক ধরণের হোর্ডিংয়ে বাংলার মনীষীদের সঙ্গে এক সারিতে বসানো হয়েছে মুখ্যমন্ত্রীকে। সেই হোর্ডিংও আলো (বা অন্ধকার) করে রেখেছে শহরের আকাশ। কারো মনে হয়নি ব্যাপারটা অন্যায়, অশ্লীল? বাঙালি সংস্কৃতির উপর আঘাত? আমরা কি অপেক্ষা করছিলাম কবে বিদাসাগরের মুন্ডুটা আছড়ে মাটিতে ফেলা হবে তার জন্যে?
আর একটা কথা বলার আছে। বাংলার সংস্কৃতি আক্রান্ত সন্দেহ নেই। কিন্তু চট করে ব্যাপারটা যেরকম বাঙালি বনাম অবাঙালি করে ফেলা হয়েছে তা শুধু সঙ্কটটাকে গুলিয়ে দেওয়ার চেষ্টা। লড়াইটা আসলে ভাল বনাম মন্দের, বাঙালি বনাম অবাঙালির নয়। বাঙালিকে নিজভূমে পরবাসী হতে কেউ জোর করেনি।
অফিসে কাজ করতে করতে ক্ষিদে পেলে সুইগি অ্যাপের মাধ্যমে খাবার আনাই। গত এক দেড় মাসে দুবার দুজন ডেলিভারি বয় খাবার নিয়ে এসে আমাকে ফোন করে হিন্দিতে কথা বলেছে। একজনের পদবী হালদার, অন্যজনের সাহা। তবু নিশ্চিত হওয়ার জন্যে তাঁদের জিজ্ঞেস করেছিলাম “ভাই, আপনি বাঙালি তো?” সদর্থক উত্তর পেয়ে জানতে চেয়েছিলাম আমার পদবি বন্দ্যোপাধ্যায় দেখেও কেন হিন্দিতে কথা বললেন। দুজনেই জানালেন আজকাল বাঙালি খদ্দেররা নাকি বাংলায় কথা বললে বুঝতেই পারেন না। এ জিনিস বাঙালিকে বড়বাজারের গদির কোন মারোয়াড়ি শেখাননি, ভবানীপুরের পাঞ্জাবীরাও শেখাননি। ঠিক যেমন বাঙালি মেয়ের বিয়েতে সঙ্গীত করতে হবে এমনটা কোন অবাঙালি মাথায় বন্দুক ঠেকিয়ে দাবী করেননি, বাঙালি বর বৌভাতে শেরওয়ানি না পরলে ভোটার লিস্ট থেকে নাম কেটে দেওয়া হবে, এমনটাও কোন অবাঙালি রাজনীতিবিদ হুমকি দেননি। হিন্দিকে বাংলার মাথায় চাপিয়েছে বাঙালি নিজেই। যে কারণে শহুরে, লেখাপড়া জানা বাঙালির বিদ্যাসাগরের জন্যে এই হঠাৎ আবেগকে মড়াকান্নার বেশি কিছু বলা শক্ত।
বাঙালি সংস্কৃতির উপর আঘাত করা শুরু হয়েছে তখন থেকে যখন বাংলার অধিকাংশ ইসলাম ধর্মাবলম্বী মানুষের মাতৃভাষা বাংলা হওয়া সত্ত্বেও যেখানে সেখানে রাজনৈতিক হোর্ডিং লেখা শুরু হয়েছে উর্দুতে। প্রবল আঘাত করা হয়েছে তখন যখন হিন্দি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করা হয়েছে। বিরাট আঘাত নেমে এসেছে তখন যখন কলকাতার আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব প্রাঙ্গণে সত্যজিৎ রায়, ঋত্বিক ঘটক, মৃণাল সেন, তপন সিংহ, অজয় কর, নিদেনপক্ষে উত্তম কুমার বা সুচিত্রা সেনের বদলে চলচ্চিত্রের সঙ্গে সম্পর্কহীন নেত্রীর ঢাউস প্রতিকৃতি টাঙানো হয়েছে। পঞ্চধাতুর বা দুশো ফুটের বিদ্যাসাগর মূর্তি বানিয়ে এই ক্ষতি পূরণীয় নয়। এবং এ ক্ষতি অবাঙালিরা কেউ করেনি।
বিদ্যাসাগরকে রাধাকান্ত দেব, রসময় দত্তর মত বাঙালিদের বিরুদ্ধেই লড়তে হয়েছিল। তাই অনেকে যে বলছেন “বাঙালিকে সব বিভেদ ভুলে এক হতে হবে”, সেকথা একেবারে ভুল। বরং বাঙালিকে পক্ষ নিতে হবে। ঠিক করতে হবে সে বিদ্যাসাগরের পক্ষে না রাধাকান্তদের পক্ষে। কথায় এবং কাজে আমাদের রামমোহন, বিদ্যাসাগরের আত্মীয় ছিলেন মহারাষ্ট্রের আত্মারাম পান্ডুরঙ্গ, জ্যোতিরাও ফুলেরা। ঠিক তেমনি সেদিন যাঁরা বিদ্যাসাগরকে অকথা কুকথা বলেছেন, প্রাণ নাশের চেষ্টা করেছেন তাঁদের উত্তরসূরী আজকের মোদী, অমিত শাহরা। অতএব হিন্দি জাতীয়তাবাদের বিপক্ষে বাঙালি জাতীয়তাবাদের অতিসরলীকরণ দিয়ে এ লড়াই লড়া যাবে না। ওভাবে লড়লে বড়জোর কারো নির্বাচনী লড়াইয়ে সুবিধা হতে পারে, বাঙালি জাতীয়তাবাদের আড়ালে নিজেদের অপসংস্কৃতি লুকিয়ে ফেলার সুবিধা হতে পারে।
পুনশ্চ: অধুনা যে হাওয়া তাতে এই লেখাটাকে বামের রাম হয়ে যাওয়ার প্রমাণ হিসাবে চালানো হবে হয়ত। হলে আমি নিরুপায় কারণ আমি ছোট থেকে অঙ্কে কাঁচা। বাইনারি বুঝি না।