Cape Town highlights Indian cricket’s superhero complex

From the aggressive, expressive Kohli to the usually calm Ashwin, everyone now thinks this is acceptable on-field behaviour.

Virat Kohli at Cape Town. Photo from Twitter

No true Amitabh Bachchan fan can forget the scene from the movie Amar Akbar Anthony, where he (the character of Anthony) talks to the mirror and scolds himself for drinking, blames getting badly beaten up on being drunk, then pastes a band-aid on the mirror instead of his wounds. Likewise, no ardent Virat Kohli fan will be able to forget the scene from Cape Town, where he talks to the stump microphone and scolds the TV broadcaster for ‘siding’ with the home team. Intoxication made Anthony’s behaviour plausible in Prayag Raj’s screenplay, but the screenplay writer of Kohli’s biopic will find it hard to make this stump mic scene plausible for cinema-goers of the future, who may have not watched it live.

How would the screenplay writer show what was going through Kohli’s mind? Being the Indian captain and having spent 14 years in international cricket, it is not possible that he did not know how the Decision Review System (DRS) works, or that HawkEye is not owned by Cricket South Africa. Then what prompted the overreaction? Was he more angry with himself because of his failure with the bat despite spending a lot of time at the crease, and needed somebody to shout at? Was it the feeling that the final frontier is slipping away, despite South Africa having a less experienced, perhaps less talented team?

The role of Ravichandran Ashwin makes the scene more baffling. One can understand Ashwin’s frustration. His place in the playing XI for overseas Tests has been uncertain under Kohli, and he went wicketless in the first innings at Cape Town, the series decider. That after picking up just three wickets in the first two Tests. The wicket of Dean Elgar at that point could have turned the match on its head and proved to everyone how valuable Ashwin is even in conditions not conducive to spin bowling. But a thinker like Ashwin should have been able to contain his emotions instead of putting up a spectacle that would only convey a wrong message to young cricketers — that everyone in the world is conspiring against you. And whenever a decision goes in your opponent’s favour, you should cry “murder”.

But which invisible monster was KL Rahul fighting in that scene? When the umpire who raised the finger against Elgar is a South African himself, how did Rahul get the idea that the entire country is fighting against 11 Indians? Has watching too much Bollywood on OTT done this to the elegant batter?

Answers to those questions shall not lead us anywhere because what happened on January 13 shows it is not about individuals anymore. From the aggressive, expressive Kohli to the usually calm Ashwin, everyone now thinks this is acceptable on-field behaviour. Therefore, we need to ask how and why they arrived at this conclusion. In fact, using the word ‘they’ would be holier-than-thou because the reaction of most cricketers, ex-cricketers and fans on social media show that most of us have arrived at that conclusion. Only a handful have said this behaviour is unacceptable and have been trolled for that.

This is not the first time a DRS call has gone against India and raised eyebrows. Mayank Agarwal’s LBW in the first Test is fresh in everyone’s memory, but at least some remember the dismissal of Rahul Dravid on his last England tour. DRS declared him out caught while the truth is he had only hit his shoelaces. Why did he not scream afterwards, not allege conspiracy? Why has the sky fallen now? One can always say Dravid, Sachin Tendulkar, Sourav Ganguly et al were softer human beings; as opposed to the bold, new Indian team built by Kohli and Ravi Shastri.

But the former lot had had their share of bad boy moments, most memorably, the Mike Dennes moment in South Africa. That was the first time the Board of Control for Cricket in India (BCCI) showed its monetary might to oppose the punishment meted out to six of its cricketers. Call it bold or arrogant, the board at least had the decency to negotiate matters with the International Cricket Council (ICC) after the heat of the moment evaporated. While five Indian cricketers had their one-Test ban overturned, Virender Sehwag had to serve it. Reason why that generation knew, no matter how big a stars they were, over-the-top reactions shall have consequences.

That is not the case with the current lot. BCCI’s coffers have grown in leaps and bounds since the Dennes incident. Today, the BCCI, with its rich brethren from England and Australia, decides who and how much they will play. Moreover, the BCCI has the Indian Premier League — a league everyone wants a piece of. The likes of Kohli, Ashwin and Rahul know they can live on their own terms, even if that goes against all norms.

Hence Kohli’s proud post-match remarks: “We understood what happened on the field and people on the outside don’t know exact details of what goes on on the field.” On one hand, this is a back-handed compliment to the BCCI. As if Kohli knows whatever his differences with the board president, that chair is so powerful that ICC would not dare to punish his employees. On the other hand, this is a warning to everyone concerned: if a technological error goes against us again, we shall deal with it this way.

To be fair to Kohli, Ashwin and Rahul, it is Mahendra Singh Dhoni who first showed an Indian cricketer is above the game. During the 2019 IPL game between his franchise Chennai Super Kings and Rajasthan Royals, he went straight into the ground to protest a no-ball decision reversed by the leg umpire. For such an unprecedented and uncouth behaviour, Captain Cool was only fined 50% of his match fee.

Like it or not, Indian cricketers are superheroes in the eyes of a lot of people, including themselves. Unfortunately, they do not have somebody like Spiderman’s uncle, who would pronounce “With great power, comes great responsibility.” So Cape Town can any day be repeated in Christchurch, Kanpur or Kandy. Endless whataboutery can be done to justify our superheroes. The problem is, superheroes can soar above rule of law but not laws of nature. What will happen if both teams on the pitch grow the superhero complex some day? Are we betting on the TRP of a Rashid Patel versus Raman Lamba rerun during an international match?

Published on https://newsclick.in

One for the team: Logic behind Kohli’s sacking as ODI skipper

Sounds like a man who thinks the captain is not named by selectors but by the skipper himself. Such thoughts are always wrong in sports

Photo courtesy: Internet

During our college days in Bengal, there were some journalists whose articles we used to devour like a newly-wed man devouring luchi (Bengali version of puri) and mutton at in-laws’ place. Behind-the-scenes story of the Indian cricket team’s dressing room was their USP. Sourav Ganguly was the hero in those stories. Naturally, when captaincy was snatched away from him in 2005, Ganguly became a tragic hero — a man more sinned against than sinning.

While Greg Chappell was the villain, the “et tu Brute” dialogue was directed at Rahul Dravid. They made their debut together, Ganguly gave him the big gloves to keep him in the ODI side, didn’t he? How could he betray Dada and become Greg’s ally! This was the discourse we were fed, and we believed it.

It took many of us years to realise that the point to ponder in the Chappell-Ganguly saga was not personal rivalry but team cause. Ganguly was 33 in 2005 and his batting form was dipping. After winning the Natwest Trophy final in 2002, his team kept losing crunch matches, the most important one being the 2003 World Cup final. A fresh man at the helm could give the team a new direction.

The real conflict was between two cultures — one of hero worship, the other of putting the team before individuals. Chappell’s attempt to establish the latter in Indian cricket ended in failure with India’s shocking group-stage exit from the 2007 ICC World Cup. Those in the know say there were other reasons as well for that unmitigated disaster. Whatever it is, the man cannot be grudged today as the cricketers he had placed at two ends of that tug-of-war, have come together to do what he meant to.

No matter what we were made to believe back in the day, it is now clear that Ganguly does not think of himself as Julius Caesar and Dravid as Brutus. It is possible that he did when it all happened, but looking back with age on his side, he obviously realised team cause had to take precedence. And Dravid had the safest hands to hold that cause. Otherwise, he as the BCCI president, would not have put his old mate in charge of Team India’s supply line first, the team itself next.

There are people who would oppose this way of looking at Virat Kohli’s ODI captaincy being snatched away, saying Ganguly was a struggling batter back then, Kohli is not. But the parallels are too many to ignore. Kohli is also 33 and though he still averages a monumental 59.07 in ODIs, there has been a dip. His last ODI century came on August 14, 2019 in Port of Spain. After that match, he has averaged 43.26 in 15 matches till now. It is still good enough for most batters and that is why his place in the team is not in question, unlike Ganguly. But his repeated failure to drive the team towards trophies mirrors Ganguly’s difficulties in the last days of his captaincy. Unless one thinks winning trophies is not important, this warrants a change in leadership.

Much is being made of Kohli’s winning percentage as captain, ignoring the fact that bilateral ODI series have lost much of their significance. In the age of T20Is, even the numbers of ODIs are going down. More and more bilateral tours are being planned with more T20Is than ODIs. Even the bilateral T20Is are less important than franchise cricket. Nowadays, all teams look at bilateral white-ball series as a build-up to the world event. There is a World T20 every two years and a 50-over World Cup every four. In short, a team is playing four white-ball world events in five years. In fact, in the eight years between 2024 and 2031, this number will go up to eight, including the Champions Trophy. How do bilateral wins matter then?

One may pertinently ask, why sack him now? After all, the last ODI India played under Kohli was in March. What new failure has come his way in the meantime? The answer lies not in the recent past but in the near future. Kohli has given up on the T20I captaincy and Ravi Shastri has left, which allows a new management to shape a new vision for the 2022 World T20. After that, there will be less than a year left for the 50-over World Cup. It would be too late to change the captain, the need of which has been explained already. In case that does not satisfy you, there is the board president’s explanation of course: there cannot be two captains for two white-ball formats.

That brings us to the question, why did Kohli relinquish T20I captaincy? If Ganguly is to be believed, the board wanted him to stay, and nobody knew before the World T20 what a disaster it was going to be. Kohli’s own explanation, in his Instagram post, was “I feel I need to give myself space to be fully ready to lead the Indian team in Test and ODI cricket.”

That sounds like a man who thinks the captain is not named by selectors but by the skipper himself. Such thoughts are always wrong in sports. Steve Waugh realised it a year before the 2003 World Cup, despite leading Australia to the trophy in the previous edition of the tournament. Australia were looking at the future of the team, not the greatness of their captain.

Future! How can 34-year-old Rohit Sharma be the future? This rebuttal is more interesting than correct, because it helps us question the progress India’s ODI side has made under Kohli-Shastri combine. When Australia removed Waugh, the man to replace him was 29-year-old Ricky Ponting but we do not have an option other than Rohit. Because except him and Jasprit Bumrah, there is not one cricketer in the ODI side who is experienced enough for the job, and Bumrah has never even been the vice-captain. Shikhar Dhawan is out with lack of form, Hardik Pandya does not know how fit he is. Nobody else has been given a long uninterrupted run in the playing XI.

KL Rahul’s talent was never in question, and he made his debut in 2016. In spite of that he is only 38 ODIs old. Under Kohli, everyone from Ambati Rayudu to Vijay Shankar has played at No. 4 and failed, but Rahul has mostly warmed the bench. In the end, he had to don the big gloves for his chance. Shreyas Iyer was picked, dumped and has now been picked again. Better not talk about what happened to Manish Pandey after that match-winning century Down Under, or why past-his-prime Dinesh Karthik played the 2019 World Cup. Ravichandran Ashwin was never in the scheme of things under Kohli. Even Ravindra Jadeja was out of favour for some time as Yuzvendra Chahal and Kuldeep Yadav were touted as the next big thing. First Yadav fell out of favour for a handful of bad shows, then the inexplicable axe fell on Chahal. So which team has captain Kohli built in so many years? What was the vision? Clearly, the team was going nowhere.

To come back to the parallels, Ganguly’s captaincy had also gone to a player his age. That did not produce desirable results in ODIs, but success is never guaranteed. Besides, Team India did not have a rich supply line back then. One hopes at least that is not a myth waiting to be busted. If it does turn out to be a myth, there will be ample scope to criticise the BCCI. Putting team cause over reputation cannot be faulted today.

Originally published here

https://www.newsclick.in/one-team-sound-logic-behind-virat-kohlis-sacking-odi-skipper

Troll comes full circle for Kohli and how

What is now happening to the Indian cricketers, is more or less, what happens to an army which has lost a war.

Photo courtesy: Internet

During his international career, Virat Kohli has mostly seen the bright side of fame. Only since last Saturday has the dark side started to make its presence felt. The brickbats he is receiving would be fine had the reason only been Team India’s abject failure in the ongoing ICC T20 World Cup. But he is being panned more because of his counter-attack in defence of teammate Mohammad Shami. In fact, brickbat would be a horrible euphemism for the abuses being hurled at Kohli, and shamefully, his 10 month daughter.

However, India is not made of right-wing trolls alone. Many on social media also hailed Kohli for his words. More importantly, the media wrote reams of praise. While doing that, some have even compared his statements with Sunil Gavaskar’s well-known heroic act of saving a family from a violent mob during the 1993 Mumbai riots. This comparison is symptomatic of our times. Virtual reality has so overwhelmed us that we think words are as good as, if not better than, actions. They are not. And that is a valid enough reason we need to look at Kohli’s outburst more critically.

There is not one word in that statement which a sane human being would disagree with. However, it would be naivete to dismiss so many people just as Rs. 2 trolls, especially because many of them were ardent Team India and Kohli lovers till the other day. Therefore, we need to ask why so many cricket fans in today’s India think losing a game of cricket is the end of the world.

Bitter truth is, those who run Indian cricket have themselves injected this idea into fans that cricket is a lot more than a game and the other team is not our opponent but enemy. Kohli, too, has played a big part in forming this idea.

The Kohlis and the Dhonis may not want it that way, but their life is their message for the fans. They not only copy the star’s batting stance, hair cut or mannerism, but also his behaviour on and off the field. They may not take a politician’s words seriously but shall trust every word the favourite cricketer says. In the age of 360-degrees, 24×7 sports coverage, they shall copy the pointed finger, the middle finger, the chest thump, the fist pump, the aggression, the frustration, the shout, the pout. Whether that is the right thing to do is a different question.

Three years back, the Virat Kohli Official App was launched. A video was released for its promotion where Kohli was answering questions sent by random people. One person had written in, saying he thought Kohli was an overrated batter and he enjoyed watching English and Australian batters more. Kohli’s reply was “OK, I don’t think you should live in India then… you should go and live somewhere else, no. Why are you living in our country and loving other countries? I don’t mind you not liking me but I don’t think you should live in our country and like other things. Get your priorities right.”

This remark, obviously, goes against the spirit of cricket which prompts the Caribbeans to write songs praising Gavaskar, Australians to name their children Sachin and Pakistani Umar Draz to hoist the Tricolour because he is a Kohli fan. But neither the Board of Control for Cricket in India (BCCI), nor any former cricketer told Kohli that his behaviour was unsporting. Naturally, that incident would prove to a common fan that praising cricketers from other countries is blasphemy.

There was more to that comment than absence of sporting spirit though. It was in line with and eerily similar to the “go to Pakistan” jibe critics of the central government have been targeted with since 2014. India’s otherwise liberal cricket writers somehow missed this point and are now aghast that people are being arrested for supporting a different team.

The not-just-a-game theme was taken up a notch in 2019, when Kohli and Co. played a One-Day International in Ranchi on March 8 wearing army camouflage caps. It was to honour the victims of the Pulwama terror attack. Interestingly, nobody in the army or the government found it disrespectful to the jawans who died that the caps not only had the BCCI logo on them but also the sponsor’s logo. The team went to town about their love for the army and how it was Mahendra Singh Dhoni, an honorary lieutenant colonel in the Indian territorial army, who came up with the idea. Thus, in popular imagination, the cricket team could acquire the same place as the army.

Once again, no ex-cricketer, no expert, not even the International Cricket Council (ICC) found anything objectionable in this. The ICC regarded it just “as part of a charity fundraising effort” because the Indian team also donated their match fees to the National Defence Fund. But it became too much even for them during the World Cup later that year when lieutenant colonel Dhoni sported the dagger logo of his regiment on his wicket-keeping gloves. When the ICC objected to it, who all spoke out for Dhoni? BCCI Committee of Administrator chief Vinod Rai and sports minister Kiren Rijiju. While Rai’s logic was that it is not an army symbol, the minister tweeted “… the issue is connected with the sentiments of the country, the interest of the nation has to be kept in mind.”

Clearly, even a logo on the gloves of a cricketer who is just an honorary member of a paramilitary force is connected to the sentiments of the country. So much so that even a minister intervenes if it is asked to be removed. One could rightfully ask, why did Dhoni need to place such a sensitive logo on his gloves? So many army men have represented India in different sports over the years, including Major Dhyan Chand and Tokyo Olympics gold medallist Neeraj Chopra. If none of them needed to sport any army insignia, why Dhoni? The only possible answer could be his wish to be something more than a cricketer. Or was the board trying to elevate cricketers to a different level? Nothing wrong with that if they can handle the pressure of being treated as army men by the fans.

What is now happening to the Indian cricketers, is more or less, what happens to an army which has lost a war. Soldiers of a defeated army hardly get any love or respect in their country and the choicest abuses are reserved for the general. For Kohli & Co., one can only hope the online trolling stays online. Millions of Indians know how bad things get when the hate produced online spills on to the streets. The street-fighting body language this Indian team has acquired under Kohli could work before Joe Root & Co, may not before mobs Delhi saw last year. One can possibly emulate Gavaskar’s courage on the field with talent and hardwork, emulating his courage before rioters is way more difficult.

Originally published here

https://www.newsclick.in/troll-comes-full-circle-virat-kohli-and-how

সকলেই চুপ করে থাকবে, শামিকে মানিয়ে নিতে হবে

পাকিস্তান ম্যাচে হিন্দুরা খারাপ পারফরম্যান্স করলে সন্দেহ করার কিছু নেই, মুসলমানকে সন্দেহ করতে হবে — এই মানসিকতার বিরুদ্ধে কুম্বলে, শচীনরা একটাও কথা বলেননি।

ঘটনা ১

রাজস্থানের বাসিন্দা নাফিসা আত্তারি গত মঙ্গলবার তাঁর চাকরি থেকে বরখাস্ত হয়েছেন, বুধবার গ্রেপ্তার হয়েছেন। কারণ তিনি সোশাল মিডিয়ায় রবিবারের ভারত-পাকিস্তান ম্যাচে পাকিস্তান জিতে যাওয়ার পর আনন্দ প্রকাশ করেছিলেন[১ ]।
ঘটনা ২

কাশ্মীরের শ্রীনগরের শের-এ-কাশ্মীর ইনস্টিটিউট অফ মেডিকাল সাইন্সেস আর গভমেন্ট মেডিকাল কলেজের ছাত্রছাত্রী, ওয়ার্ডেন ও ম্যানেজমেন্টের লোকেদের বিরুদ্ধে কুখ্যাত ইউএপিএ আইনে মামলা দায়ের করেছে পুলিস। অভিযোগ পাকিস্তানের জয়ে উল্লাস করা, বাজি পোড়ানো ইত্যাদি। অভিযুক্তদের চিহ্নিত করা হয়নি, তবে পুলিস বিষয়টি খতিয়ে দেখছে। ক্যাম্পাসে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদও করা হয়েছে [২]।
ঘটনা ৩

রবিবার ভারত-পাক ম্যাচের পর একটি দক্ষিণপন্থী ফেসবুক পেজ থেকে পোস্ট করা হয় যে মুসলমান পাড়ায় পাকিস্তান জেতার পর বাজি পোড়ানো হয়েছে। পুলিস তদন্ত করে দেখে যে ওই পাড়ায় সেদিন বিয়ে ছিল এবং বাজি আসলে সেখানেই পোড়ানো হচ্ছিল। যারা ফেসবুক পোস্টটি করেছিল, তারা দোষ স্বীকার করে লিখিতভাবে ক্ষমা প্রার্থনা করেছে। পুলিস তাদের প্রত্যেককে দিয়ে ২৫ হাজার টাকার বন্ড জমা করিয়েছে [৩]।
ঘটনা ৪

উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ বৃহস্পতিবার ঘোষণা করেছেন পাকিস্তানের জয় যারা উদযাপন করেছে তাদের বিরুদ্ধে সিডিশন ল, অর্থাৎ দেশদ্রোহবিরোধী আইন প্রয়োগ করা হবে [৪ ]। আগ্রাতে কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ইতিমধ্যেই ।

সব ঘটনা উল্লেখ করা গেল না, নিশ্চিতভাবেই অনেক ঘটনা বাদ পড়ে গেল। পাঠকরা নিজেদের জানা ঘটনা এই তালিকায় জুড়ে নিতে পারবেন। এমন ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তালিকা তৈরি করা সম্ভব হলে তা কুড়ি বিশের বিশ্বকাপে ভারতীয় দলের একমাত্র মুসলমান ক্রিকেটার মহম্মদ শামির কাছে পাঠানো যেতে পারে। তাতে তাঁর মানসিক যন্ত্রণার কিছু উপশম হলেও হতে পারে। কারণ এই ঘটনাগুলো জানলে তিনি বুঝতে পারবেন, পাকিস্তানের কাছে ভারত হেরে যাওয়ার পর থেকে তাঁকে যা সহ্য করতে হয়েছে তা ভারতের সাধারণ মুসলমানদের দুর্গতির তুলনায় কিছুই নয়। তাঁকে নাহক অনলাইন গালাগালি সহ্য করতে হয়েছে, জামিন অযোগ্য ধারায় পুলিশ কেস তো আর হয়নি। চাকরিও খোয়াতে হয়নি। বিশ্বাসঘাতকতার অভিযোগ উঠেছে মাত্র, সে অভিযোগের ভিত্তিতে অন্তত গ্রেপ্তার করা হয়নি। শামির নিয়োগকর্তা যে ক্রিকেট বোর্ড, সে বোর্ডের সেক্রেটারি যখন খোদ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পুত্র, তখন দেশে ফিরলেও যে শামিকে ৩.৫ ওভারে ৪৩ রান দেওয়ার জন্য গ্রেপ্তার করা হবে না তা নিশ্চিত করে বলা যায়। সে নিশ্চয়তা এ মুহূর্তে ভারতের অধিকাংশ ইসলাম ধর্মাবলম্বীর নেই।

ফুটবলপ্রেমীরা জানেন ১৯৬৯ সালে একটা ফুটবল ম্যাচের জন্য হন্ডুরাস আর এল সালভাদোরের মধ্যে যুদ্ধ হয়েছিল [৫]। মানে খেলার জন্য যুদ্ধ হওয়ার ইতিহাস আছে। কিন্তু ভারত-পাক ক্রিকেট ম্যাচ হল যুদ্ধের জন্য খেলা — গত পাঁচ দিনের ঘটনাবলী তা প্রমাণ করে দিয়েছে। পাকিস্তানের গণতন্ত্র নিয়ে অতি বড় পাকিস্তানিও গলা তুলে কথা বলতে সঙ্কোচ বোধ করেন। আর ভারত এখন এত মহান গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র, যে ক্রিকেট ম্যাচে অন্য দেশের দলকে সমর্থন করলে চাকরি হারাতে হয়, গ্রেপ্তার হতে হয়, এমনকি দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করার অভিযোগেও অভিযুক্ত হতে হয়। কিন্তু সে কথা বললে অর্ধেক বলা হয়। কোনো ভারতীয় অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, এমনকি ইংল্যান্ডকেও সমর্থন করতে পারেন। জেলে যেতে হবে না। যত দোষ পাকিস্তানকে সমর্থন করলেই। কেবল অন্ধ ক্রিকেটভক্তরা নয়, ক্রিকেটাররা পর্যন্ত তা-ই মনে করেন। প্রাক্তন ক্রিকেটার গৌতম গম্ভীর রবিবারই টুইট করেছিলেন, যারা ভারতের জয়ে বাজি পোড়াচ্ছে তারা ভারতীয় হতে পারে না [৬]। তিনি অবশ্য এখন বিজেপি সাংসদ, তাই এমন মন্তব্য তাঁর থেকে অপ্রত্যাশিত নয়, কিন্তু বীরেন্দ্র সেওয়াগও তীর্যক টুইট করতে ছাড়েননি। তাঁর বক্তব্য দীপাবলিতে ভারতের বেশকিছু এলাকায় বাজি নিষিদ্ধ করা হয়েছে, অথচ পাকিস্তান জেতার পরে লোকে বাজি পোড়াচ্ছে। তারা বোধহয় ক্রিকেটের জয় উদযাপন করছে। তাহলে দীপাবলিতেই বা বাজি পোড়ালে দোষ কী? এই ভণ্ডামির কী প্রয়োজন? সব জ্ঞান দীপাবলির বেলাতেই কেন [৭]? সীমান্তের ওপারের ওঁরাও কিছু কম যান না। এক মন্ত্রী বলেছেন এই জয় ইসলামের জয়। প্রাক্তন ক্রিকেটার ওয়াকার ইউনিস লাইভ টিভিতে বলেছেন, রিজওয়ানের ব্যাটিংয়ের চেয়েও তৃপ্তিদায়ক ব্যাপার হল হিন্দুদের মধ্যে গিয়ে নমাজ পড়া [৮]। অর্থাৎ এতগুলো লোক তক্কে তক্কে ছিল যুদ্ধ করবে বলে — ধর্মযুদ্ধ।

কিন্তু এতেও সবটা বলা হল না। কারণ পাকিস্তানে এখন পর্যন্ত বিরাট কোহলি চার-ছয় মারার সময়ে উল্লাস করার জন্য কাউকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে খবর নেই। ওয়াকারকেও তাঁর মন্তব্যের জন্য দুঃখপ্রকাশ করে টুইট করতে হয়েছে [৯]। কিন্তু সেওয়াগ, গম্ভীররা ওসবের ধারে কাছে যাননি। কারণ পাকিস্তানি মন্ত্রী, প্রাক্তন ক্রিকেটাররা যেমন শত্রুপক্ষকে আক্রমণ করেছেন, এঁরা মনে করেন এঁরাও তেমনই শত্রুপক্ষকে আক্রমণ করেছেন। কে সেই শত্রু? উত্তরটা খুব সোজা। কানে বাজির আওয়াজ এলেই যাদের সম্বন্ধে মনে হয় নির্ঘাত ওরাই পোড়াচ্ছে এবং পাকিস্তান জিতেছে বলেই পোড়াচ্ছে, তারাই শত্রু, তারাই দেশদ্রোহী। অর্থাৎ আপনি ভারতীয় হয়ে পাকিস্তানকে সমর্থন করেও বেঁচে যেতে পারেন, যদি মুসলমান না হন।

নেহাত গা জোয়ারি মন্তব্য করা হল? মুসলমানদের দিকে ঝোল টেনে কথা বলা হল মনে হচ্ছে? মহম্মদ শামিকে রাম, শ্যাম, যদু, মধুর ‘গদ্দার’ ইত্যাদি বলা দেখেই সে সন্দেহ দূর হয়ে যাওয়ার কথা। যদি তারপরেও সন্দেহ থাকে, তাহলে শামির সমর্থনে ভারতীয় প্রাক্তন ক্রিকেটারদের টুইটগুলো লক্ষ করবেন। গম্ভীর, সেওয়াগ তো বটেই; অনিল কুম্বলে [১০], ভারতীয় ক্রিকেটের মৌনীবাবা শচীন তেণ্ডুলকার [১১]— সকলেই শামির পক্ষে টুইট করেছেন। সকলেরই বক্তব্য মোটামুটি এক। শামি চ্যাম্পিয়ন বোলার; খেলার মাঠে একটা খারাপ দিন যে কোনো খেলোয়াড়ের যেতে পারে; শামি, আমরা তোমাকে ভালবাসি, ইত্যাদি। একজনও কিন্তু বলেননি, শামি ভারতের হয়ে ক্রিকেট খেলে, আমরাও ভারতের হয়ে খেলেছি। ওকে সন্দেহ করা আর আমাদের সন্দেহ করা একই কথা। যারা তা করে তাদের মত ফ্যান আমাদের দরকার নেই। ইংল্যান্ডের ফুটবল দলের অধিনায়ক হ্যারি কেন কিন্তু পেনাল্টি শুট আউটে গোল করতে ব্যর্থ কৃষ্ণাঙ্গ ফুটবলারদের সমর্থনে ঠিক এই কথাই বলেছিলেন। শচীনরা বলেননি, কারণ ওঁরা খুব ভাল করে জানেন শামি মুসলমান বলেই সে সন্দেহের পাত্র। উইকেট না পেলেও, মার খেলেও যশপ্রীত বুমরা, ভুবনেশ্বর কুমার, রবীন্দ্র জাদেজা সন্দেহের পাত্র নয়। পাকিস্তান ম্যাচে হিন্দুরা খারাপ পারফরম্যান্স করলে সন্দেহ করার কিছু নেই, মুসলমানকে সন্দেহ করতে হবে — এই মানসিকতার বিরুদ্ধে কুম্বলে, শচীনরা একটাও কথা বলেননি। তাঁরা তবু মুখ খুলেছেন, অধিনায়ক ডাকাবুকো কোহলির থেকে পাওয়া গেছে বিরাট নীরবতা। সমালোচকদের বিরুদ্ধে কথার ফুলঝুরি ছোটানো কোচ রবি শাস্ত্রীরও মুখে কুলুপ। এমনকি টিমের বড়দা (মেন্টরের বাংলা প্রতিশব্দ পরামর্শদাতা। ধোনির জন্য সেটা বড্ড ম্যাড়মেড়ে নয়?) মহেন্দ্র সিং ধোনিও চুপ।

কেনই বা চুপ থাকবেন না? ওঁরাও তো আমার, আপনার মত কাগজ পড়েন, টিভি দেখেন, সোশাল মিডিয়া ঘাঁটেন। ফলে ওঁরা দেশের অবস্থা সম্পর্কে যথেষ্ট ওয়াকিবহাল। ওঁরা হয়ত জানেন গুজরাটের আনন্দ (আমুল খ্যাত) শহরের মঙ্গলবারের ঘটনা [১২]। সেখানে একটি নতুন হোটেল, রেস্তোরাঁ ও ব্যাঙ্কোয়েট হলের উদ্বোধন আটকাতে বিরাট জনতা হাজির হয় গত পরশু। তারা গঙ্গাজল দিয়ে এলাকা শুদ্ধিকরণের প্রয়াস করেছে। স্লোগান দিয়েছে, ভারতে থাকতে হলে জয় শ্রীরাম বলতে হবে। হিন্দু এলাকায় মুসলমান মালিকের হোটেল থাকবে, এ অনাচার তারা মানতে রাজি নয়। খবরে প্রকাশ, হোটেলটির তিন মালিকের একজন হিন্দু। কিন্তু তা যথেষ্ট নয়।

ধোনি ঝাড়খন্ডের মানুষ, দিব্যি বাংলা বলতে পারেন। রাঁচিতে তাঁর ঘনিষ্ঠ লোকজনদের মধ্যেও বাঙালি আছেন। তাঁর প্রতিভা প্রথম চিনেছিলেন কেশব ব্যানার্জি নামের এক বাঙালি মাস্টারমশাই। ফলে ধোনি হয়ত ত্রিপুরার খবরও রাখেন। হয়ত ভাল করেই জানেন, ওই রাজ্যে কীভাবে মুসলমান খ্যাদানো চলছে কদিন ধরে আর পশ্চিমবঙ্গের বাঙালি মালিকানায় চলা সংবাদমাধ্যম চোখ বুজে আছে। এই পরিবেশের মধ্যে ধোনির কী দায় পড়েছে মুসলমান সতীর্থের হয়ে মুখ খোলার?

এত ঘটনা না জানলেও আইপিএল খেলা তারকা ক্রিকেটাররা বিলক্ষণ জানেন, এক গ্রাম মাদক উদ্ধার না হওয়া সত্ত্বেও শাহরুখ খানের ছেলেকে তিন সপ্তাহ কারাবাস করতে হল। ইতিমধ্যে তদন্তকারী অফিসারের বিরুদ্ধে নানা কেলেঙ্কারির অভিযোগ উঠে এসেছে। যে দেশে অর্ণব গোস্বামীর জামিনের জন্য মধ্যরাতে আদালত বসতে পারে, সে দেশে আদালতের সময়ই হয় না মাসের পর মাস, বছরের পর বছর উমর খালিদের জামিনের আবেদন শোনার। শার্জিল ইমাম যে কথা বলেননি তার জন্য, সিদ্দিক কাপ্পান যে প্রতিবেদন লেখেননি তার জন্য, মুনাওয়ার ফারুকি যে কৌতুক করেননি তার জন্য এবং আরিয়ান খান যে মাদক নেননি তার জন্য — কারাবাস করতে পারেন। একজন আদানির বন্দরে কয়েক হাজার গ্রামের মাদক পাওয়া গেলেও তেমন হেলদোল হয় না আইনের রক্ষকদের, একজন খানকে রেভ পার্টিতে পাওয়া গেলেই সে কেবল মাদকাসক্ত নয়, মাদক ব্যবসায়ী হয়ে যায় সারা দেশের চোখে — এ কথা আমাদের মত ক্রিকেট তারকারাও জানেন। তাই তাঁরা চুপ করেই থাকবেন।

শামিকে মানিয়ে নিতে হবে। তাঁর চেয়ে অনেক দূরে, অনেক নীচে থাকা ভারতীয় মুসলমানরা প্রতিনিয়ত যেমন মানিয়ে নিচ্ছেন।

তথ্যসূত্র

১। ইন্ডিয়া টুডে
২। দ্য ওয়ায়ার
৩। টুইটার -উমেশ কুমার রায়
৪। টুইটার – PTI News
৫। বিবিসি
৬। টুইটার – গৌতম গম্ভীর
৭। টুইটার – বীরেন্দ্র সহবাগ
৮। টুইটার – ওয়াকার ইউনিস
৯। টুইটার
১০। টুইটার – অনিল কুম্বলে
১১। টুইটার – শচীন তেন্ডুলকর
১২। দ্য ওয়ায়ার

https://nagorik.net এ প্রকাশিত। ছবি ইন্টারনেট থেকে।

36 all out: Depressing present, ominous future

One can question neither the PM, nor the cricket captain or coach. They are always right

Photo courtesy: Internet

“Bhakti in religion may be a road to the salvation of the soul. But in politics, Bhakti or hero-worship is a sure road to degradation and to eventual dictatorship,” said BR Ambedkar. As we reel under the weight of India’s ignominious Adelaide defeat, it is worth exploring what bhakti leads to in team sport.

One could say comparing sports to politics is unfair as sports are more like the performing arts, thriving on the pleasure of the spectators, and that pleasure often comes from the performance of an individual. True. But the art form team sport most resembles is drama — live and performed by a team of individuals, not editable like films if you make a mistake. And a play cannot be successful unless even the best actor in the team follows the plan. Even a Shakespearean tragedy can make a theatre full of people laugh if an actor as legendary as Sir Laurence Olivier decides to act the way he likes, disregarding co-actors, or the lighting, or the dialogues. It is the same for team sport (unless you are Diego Maradona, in which case everyone else is a prop), only difference being here nobody knows what happens in the end. Any such enterprise involving so many human beings inevitably involves a lot of politics. Theatre groups have come apart because of internal politics, so have sporting teams. But we are talking about much more. When the enterprise has grown into a billion-dollar industry like Indian cricket, it cannot but be influenced by macro-politics, too, because it is part of macroeconomics.

Ramachandra Guha has already spoken out on how the Board of Control for Cricket in India is actually being run by the country’s ruling dispensation. Cricketers, journalists, analysts, even discerning fans understood much of it anyway because there is hardly any attempt to hide it. Hence, we are now aware of the hold national politics has on the administration of cricket. What we are perhaps not realizing is the impact of our politics on people directly involved with the action on the field.

To quote Sanjay Manjrekar, “It’s important to not look at 36 in isolation but at 165, 191, 242, 124, 244, and then at it. These are team totals in their last three Tests (two in New Zealand) when the ball moved. This is all India could muster, and they lost all three. So, 36 as a low score may be an aberration, but of late India have been incompetent as a batting unit when the ball has swung or seamed.” The string becomes longer if you count India’s totals on their last tour of England in 2018, where the team lost the series 1-4. It reads: 274, 162, 107, 130, 329, 352/7 declared, 273, 184, 292, 345. Just three 300-plus totals in ten innings. If we go back to the 2017-18 series in South Africa, where India could only win the dead rubber, the totals are: 209, 135, 307, 151, 187, 247. One 300-plus total in six innings. All this is technical information, but one needs to ask “why”. Why no improvement in the ability to play the moving ball despite this string of low totals? The answer is arrogant denial — typical of Team India’s management as well as the country’s management.

One can only rectify a mistake after admitting it. But Ravi Shastri and Virat Kohli never admitted there was a problem. The huge wins in between against the West Indies, Sri Lanka, South Africa et al in calmer conditions, and the historic victory on their last tour Down Under helped in brushing the flaws under the carpet. After losing the five-Test series 1-4 in England, Shastri, instead of owning up to failure on two consecutive big foreign tours, remarked, “If you look at the last three years, we have won nine matches overseas and three series… I can’t see any other Indian team in the last 15-20 years that has had the same run in such a short time, and you have had some great players playing in those series.” He was conveniently forgetting India’s series wins in England and the West Indies in 2007; the 2008-09 win in New Zealand, apart from the heroic performances in England and Australia in 2002, 2003-04, 2007-08. He was also papering over the fact that his team’s overseas wins include teams which are hardly competitive today. It reminds one of the government’s convenient tweaking of methodology for calculating GDP to make the emaciated economy look robust. A journalist asked Kohli whether that tag suits his side. He hit back “What do you think?” When the journalist said he was not sure, the visibly angry captain said, “That’s your opinion.” The nonchalance in calling inconvenient truth just an opinion stunned many but not all, because we were already living in a country where economic distress due to demonetization was just an opinion as the ruling party had won elections even after that.

Kohli’s support for demonetization was overt, not covert. It is natural for him then to think truth is owned by the powerful, rest is an ignorable opinion. That approach may win elections but does not win matches. However, denying facts is acceptable as it is the age of post truth. So much so that after a disaster like 36-9, a captain can say “You can make a lot of team plans but in such important (pressure) situations the individuals have to keep the correct mindset…” Mindset is alright but not a word about repeated collective technical failure!

Who cares? Most will forget this Saturday, even this series, as soon as some T20 matches are won. Those who don’t, should remember what Kohli told somebody in 2018, when he said he likes English and Australian batsmen more than Indians. “I don’t think you should live in India then… you should go and live somewhere else no. Why are you living in our country and loving other countries?”

Fair enough. It has long been said that the captaincy of the Indian cricket team is the toughest job in India after the Prime Minister’s job. Don’t we ask people finding faults with our PM to go to Pakistan? If that kind of hero worship is fine in politics, it should be fine in cricket. One can question neither the PM, nor the cricket captain and/or coach. They are always right. Even when the team delivers the worst batting performance in our Test history.

This is where bhakti in cricket has brought us. To be fair to Kohli and Shastri, we have always been a country of hero-worshipers. We would not have called Sachin Tendulkar the god of cricket otherwise, but at least he had the sense to understand the game is still bigger than him. It would be a tragedy if the much-loved Indian cricket team were to suffer one shameful defeat after another because of the brazenness cricketers are picking up from contemporary Indian politics. In the last few years, Team India cricketers have shown more interest in getting disliked commentators removed than removing chinks in their own armour.

It would be an even bigger tragedy if Kohli, destined for cricketing greatness, loses the plot inebriated with power. By the time he hangs up his boots, representing the new India will cease to mean anything as it shall be old. Politicians have machinery and machinations to create history. Kohli only has his bat.

Originally published here

36-9: Depressing present, ominous future

বিরাট রাজার দরবারে

আপনি কে বিরাট? মোদীজির মত আপনিও কি নিজেকে ভারতবর্ষের মূর্ত প্রতীক মনে করেন?

A lovely day for cricket
Blue skies and gentle breeze
The Indians are awaiting now
To play the West Indies
A signal from the umpire
The match is going to start
The cricketers come on the field
They all look very smart …
Erapalli Prasanna
Jeejeebhoy and Wadekar
Krishnamurthy and Vishnoo (sic) Mankad
Them boys could real play cricket
On any kinda wicket
They make the West Indies team look so bad
We was in all kinda trouble
Joey Carew pull a muscle
Clive Lloyd get ’bout three run out
We was in trouble without a doubt
It was Gavaskar
De real master
Just like a wall
We couldn’t out Gavaskar at all, not at all
You know the West Indies couldn’t out Gavaskar at all
Ven-kat-a-ra-ghavan
Bedi, in a turban
Vijay Jaisimha, Jayantilal
They help to win the series
Against the West Indies
At Sabina Park and Queen’s Park Oval
A hundred and fifty-eight by Kanhai
Really sent our hopes up high
Noriega nine for ninety-five
The Indian team they still survive
It was Gavaskar
De real master
Just like a wall
We couldn’t out Gavaskar at all, not at all
You know the West Indies couldn’t out Gavaskar at all
Govindraj and Durani
Solkar, Abid Ali
Dilip Sardesai and Viswanath
They make West Indies bowlers
Look like second raters
When those fellas came out here to bat
West Indies tried Holder and Keith Boyce
They had no other choice
They even try with Uton Dowe
But ah sure that they sorry they bring him now
It was Gavaskar
De real master
Just like a wall
We couldn’t out Gavaskar at all, not at all
You know the West Indies couldn’t out Gavaskar at all
Little Desmond Lewis
Also Charlie Davis
Dey take a little shame from out we face
But Sobers as the captain
He want plenty coachin’
Before we cricket end up in a disgrace
Bedi hear that he became a father
So he catch out Holford in the covers
But when Sobers hear he too had a son
He make duck and went back in the pavilion
It was Gavaskar
De real master
Just like a wall
We couldn’t out Gavaskar at all, not at all
You know the West Indies couldn’t out Gavaskar at all

মহামান্য বিরাট রাজা সমীপেষু,
ক্রিকেট আর ভদ্রলোকের খেলা নেই আমরা সকলেই জানি। তাই আজকাল ক্রিকেটারদের থেকে মাঠে বা মাঠের বাইরে ভদ্রলোকসুলভ ব্যবহার কেউ আশাও করে না। আজকাল মাঠে যে ক্রিকেটার যত বেশি গালাগালি দেন তিনি তত বেশি ডাকাবুকো। ক্ষিপ্ত বাঁদরের মত দাঁত না খিঁচোলে যে আগ্রাসন প্রকাশ পায় না তা এখন সদ্য প্লাস্টিকের ব্যাট হাতে নেওয়া শিশুও জানে। অতএব আপনি শতরানের পর শতরান করে ভক্তদের রানের ক্ষিদে বাড়িয়ে দিলেও আপনার থেকে দৃষ্টান্তমূলক ভদ্রজনোচিত ব্যবহার কেউ আশা করে না। বস্তুত তেমন কিছু কখনো করে ফেললে আপনার অনেক ভক্ত হয়ত ঈষৎ রুষ্টই হবেন। আপনার অধীনস্থ সৈনিক যজুবেন্দ্র চহল যেমন কিছুদিন আগে এক পাকিস্তানি ক্রিকেটারের জুতোর ফিতে বেঁধে দিয়ে অপ্রয়োজনীয় হাততালির সঙ্গে বেশকিছু নিন্দেমন্দও শুনলেন। ভক্তরা যা আশা করেন তা হল খেলোয়াড়োচিত মনোভাব, লোকদেখানো হলেও। সেটুকুরও অভাব ঘটা পীড়াদায়ক।
সোশাল মিডিয়ায় ইতিমধ্যে সংক্রমিত ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে কোন এক ক্রিকেটমোদী লিখেছেন তিনি মনে করেন আপনি “overrated” এবং আপনার ব্যাটিঙে কোন বিশেষত্ব নেই। তিনি আপনার ব্যাটিঙের চেয়ে অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ডের ব্যাটসম্যানদের ব্যাটিং দেখতে বেশি পছন্দ করেন। সন্দেহ নেই লোকটি/মহিলাটি নিতান্ত বেরসিক। কিন্তু আপনি নিদান দিয়েছেন অন্য দেশের খেলোয়াড়দের বেশি পছন্দ হলে সেই দেশেই চলে যাওয়া উচিৎ। অদূর অতীতে আপনার নানা আপত্তিকর ব্যবহারের উত্তরে কিছু লিখব ভেবেও লিখিনি। এবার কিন্তু আত্মসংবরণ অন্যায় বলে মনে হচ্ছে। তাই দু কলম না লিখে পারলাম না।
সবে গতকাল আপনাদের ভারতীয় ক্রিকেট দল নির্বিষ ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিষ ঝেড়ে উঠল। কুড়ি বিশের সিরিজের ঠিক আগে হওয়া পঞ্চাশ ওভারের সিরিজে আপনি প্রবল ব্যাটিং বিক্রমে আরো একবার ক্রিকেটমোদীদের মুগ্ধ করলেন। ধরে নেওয়া অযৌক্তিক হবে না যে তার ফলে ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জে আপনার ভক্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। এখন যতই সবার পিছে সবার নীচে জায়গা হোক না কেন, আপনি নিশ্চয়ই জানেন ঐ দ্বীপপুঞ্জের ক্রিকেট দল একদা অবধ্য ছিল। তাদের হাড়ে কাঁপন ধরানো জোরে বোলার আর নির্দয় ব্যাটসম্যানরা বিশ্ব ক্রিকেট শাসন করতেন। এই লেখার শুরুতে রোমান হরফে যে দীর্ঘ অন্ত্যমিলযুক্ত কবিতাটা দেখা যাচ্ছে সেটা আসলে একটা গান, ক্যারিবিয়ানরা যাকে বলেন ক্যালিপসো। এই ক্যালিপসো রচিত হয়েছিল সুনীল গাভাসকরের বন্দনায়। ১৯৭১ এর ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে গিয়ে যখন অজিত ওয়াড়েকরের ভারতীয় দল সিরিজ জেতে তখন ওখানকার ক্রিকেটপ্রেমীরা এই গান রচনা করেন। এই গানে প্রায় প্রত্যেকটি ভারতীয় ক্রিকেটারের প্রশংসা করা হয়েছে। কি সৌভাগ্য আমাদের যে সেই সফরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের অধিনায়ক গারফিল্ড সোবার্স গানটা শুনে বলেননি, ভারতীয় ক্রিকেটারদের অত পছন্দ হলে ভারতে চলে যাওয়া উচিৎ। যদি বলতেন তাহলে এরকম অমর ক্যালিপসো আর আমরা পেতাম না। কিন্তু ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিকেট আজ মরণাপন্ন হলেও ক্যালিপসো বেঁচে আছে। ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটারদের পাশাপাশি অন্য দেশের ক্রিকেটারদের নিয়ে একইরকম ভালবাসায় গান লিখেও বেঁচে আছে। খুঁজলে হয়ত আপনাকে নিয়ে লেখা গানও পাওয়া যাবে।
সোবার্সের অবশ্য অমন কথা বলার একটা ব্যবহারিক অসুবিধাও ছিল। তিনি কোন দেশের লোককে ভারতে যেতে বলতেন? ইতিমধ্যে কয়েকবার ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর করে আসার সূত্রে আপনি নিশ্চয়ই জানেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ বলে একটা ক্রিকেট দল থাকলেও কোন দেশ নেই। ত্রিনিদাদ ও টোব্যাগো, জামাইকা, গায়ানা, লিওয়ার্ড আইল্যান্ড, উইন্ডওয়ার্ড আইল্যান্ড, অ্যান্টিগা প্রভৃতি দ্বীপগুলো প্রত্যেকটাই একেকটা দেশ। ১৯৯৬ বিশ্বকাপের প্রাক্কালে যেমন ভারত আর পাকিস্তানের সম্মিলিত ক্রিকেট দল শ্রীলঙ্কায় খেলতে গিয়েছিল, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দল আসলে তেমনই একটা দল। প্রত্যেক ম্যাচের শুরুতে আপনারা আম্পায়ারদের পাশে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়ান, তারপর জনগণমন গান। এতে নাকি দেশের হয়ে খেলার জন্যে আলাদা উৎসাহ পাওয়া যায়, যথোপযুক্ত অ্যাড্রিনালিন ক্ষরণ হয় — এসব আজকাল শুনতে পাই। যখন জেসন হোল্ডার, কার্লোস ব্রাথওয়েটদের পালা আসে তাঁরা কিন্তু কোন জাতীয় সঙ্গীতে গলা মেলান না। কারণ তাঁরা সকলে এক দেশের নাগরিক নন। তাঁরা একটা ক্যালিপসোতে গলা মেলান। চিরকাল ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্ষেত্রে তাই-ই হয়ে আসছে। যে দেশপ্রেমকে আপনি ক্রিকেটের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ বলে প্রমাণ করার চেষ্টা করেছেন তা যে আসলে একটি কাল্পনিক আবেগমাত্র, তার এর চেয়ে বড় প্রমাণ হয় না। ঐ আবেগটির অভাব যে ভাল ক্রিকেট খেলায় বাধা সৃষ্টি করে তাও বলার উপায় নেই। কারণ ক্লাইভ লয়েডের প্রায় অপরাজেয় দলটাও জাতীয় পতাকা বা জাতীয় স্তোত্র ছাড়াই অমন দুর্দমনীয় হয়ে উঠতে পেরেছিল। অর্থাৎ জিততে দেশপ্রেম লাগে না, যোগ্যতা লাগে, প্রতিভা লাগে, ইচ্ছাশক্তি লাগে।
অবশ্য কাল্পনিক হলেও দেশপ্রেম খারাপ কিছু নয় যতক্ষণ তা অকারণে অন্যকে আঘাত করার অস্ত্র হয়ে উঠছে। যখন তা ঘটে তখন আর ওটা দেশপ্রেম থাকে না, হয়ে ওঠে উগ্র জাতীয়তাবাদ। সম্প্রতি জনপ্রিয় যে তুলনাটা সেটা দিয়েই বোঝানো যাক।
“জানি নে তোর ধনরতন আছে কিনা রানীর মতন, শুধু জানি আমার অঙ্গ জুড়ায় তোমার ছায়ায় এসে।“ এই হল দেশপ্রেম।
“সকল দেশের রানী সে যে আমার জন্মভূমি।“ এই হল জাতীয়তাবাদ।
আমার দেশ আমার বড় প্রিয়, অন্য দেশের সাথে তুলনা করি না। অর্থাৎ আমি দেশপ্রেমিক। কিন্তু অন্য দেশের সাথে তুলনা না করে আমার চলে না এবং সে তুলনা কখনোই তথ্যনিষ্ঠ হয় না কারণ আমি আগে থেকেই সিদ্ধান্ত করেছি আমার দেশ সব দেশের চেয়ে ভাল — এই মূঢ়তারই অপর নাম জাতীয়তাবাদ।
মাননীয় বিরাট রাজা, আপনি বাংলা পড়তে পারুন বা না-ই পারুন, এ লেখা আপনার চোখে পড়ুক বা না-ই পড়ুক, আপনার অগণিত ভারতীয় ভক্তকুল থেকে অবিলম্বে আওয়াজ উঠবে “কেন? জাতীয়তাবাদী হলে অসুবিধাটা কোথায়?” অসুবিধা এই যে সেক্ষেত্রে নিজের দেশের ত্রুটিগুলো কখনোই আপনার নজরে পড়বে না, ফলে সেগুলোর সংশোধনও হবে না। সাম্প্রতিককালের সবচেয়ে দুর্বল ইংল্যান্ড দলের সাথে ৪-১ এ সিরিজ হেরেও আপনি দাবী করবেন সিরিজটা আরেকটু হলেই জিতে গেছিলেন। আপনার দলের প্রাজ্ঞ কোচ বলবেন আপনারাই এতাবৎকালের সেরা সফরকারী দল। কোন সাংবাদিক যদি বলেন তথ্য অন্যরকম বলছে তাহলে “It’s your opinion” বলে উড়িয়ে দেবেন। এ কথা চিরকাল প্রকাশ্যে গোপন থাকবে যে এ বছর আপনার দল বিদেশে মাত্র দুটি টেস্ট জিতেছে আর আপনাদের ঠিক পরেই রয়েছে যে দল তার নাম জিম্বাবোয়ে। তারা জিতেছে একটি টেস্ট।
এতৎসত্ত্বেও আপনার মন্তব্যে তত আপত্তি করতাম না যদি তার মধ্যে প্রকট রাজনৈতিক ঘৃণার প্রভাব লক্ষ্য না করতাম। আপনি যে ক্রিকেটজগতের বাইরের ঘটনা সম্পর্কে শচীন তেন্ডুলকরের মত উদাসীন নন, বরং যথেষ্ট আগ্রহী তার যথেষ্ট প্রমাণ আপনি নিজেই দিয়েছেন। নোটবন্দীকে স্বাধীন ভারতের ইতিহাসে সবচেয়ে বৈপ্লবিক পদক্ষেপ বলে অভিনন্দিত করেছিলেন। নোটবন্দীর সর্বৈব ব্যর্থতা প্রমাণ হওয়ার পরে অবশ্য সুচিন্তিত নীরবতা পালন করেছেন। আপনি টুইটারেও যথেষ্ট সক্রিয়। ফলত এ কথা বিশ্বাসযোগ্য নয় যে “না পোষায় অন্য দেশে চলে যাও” একথা গত কয়েক বছরে কাদের উদ্দেশ্যে কারা প্রয়োগ করেছে তা আপনি জানেন না।
আপনার ও অনুষ্কা শর্মার সুবিজ্ঞাপিত বিবাহবাসরের প্রধান অতিথি নরেন্দ্র মোদী ক্ষমতায় আসার পর থেকে তিনি, তাঁর সরকার আর দেশ সমার্থক হয়ে গেছে তাঁর সমর্থকদের কাছে। জওহরলাল নেহরু থেকে মনমোহন সিং পর্যন্ত সব প্রধানমন্ত্রীর যথেচ্ছ সমালোচনা হয়েছে, আমার আপনার প্রজন্ম বেড়ে উঠেছে “গলি গলি মে শোর হ্যায়, রাজীব গান্ধী চোর হ্যায়” স্লোগান শুনতে শুনতে, অথচ মোদীজির ন্যূনতম সমালোচনা করলেও দেশদ্রোহী হয়ে যেতে হয় এবং শুনতে হয় “Go to Pakistan”। প্রচ্ছন্ন থাকে এই ইঙ্গিত যে ভারতের ধর্মীয় সংখ্যালঘুরা মনে প্রাণে ভারতীয় নন বলেই তাঁরা এদেশের সব খারাপ দ্যাখেন। যারা সমালোচনা করে তারাও ঐ দলে এবং এদেশ তাদের দেশ নয়, তাদের দেশ পাকিস্তান। সেখানেই তাদের যাওয়া উচিৎ।
প্রকাশিত ভিডিওতে আপনি যে সুরে, যে ভাষায় জনৈক ক্রিকেটপ্রেমীকে বলছেন আপনার ব্যাটিং ভাল না লাগলে অন্য দেশে চলে যাওয়া উচিৎ, তাতে “Go to Pakistan” এর গগনবিদারী প্রতিধ্বনি। আপনি কে বিরাট? মোদীজির মত আপনিও কি নিজেকে ভারতবর্ষের মূর্ত প্রতীক মনে করেন? মুখঢাকা বিজ্ঞাপন যা-ই বলুক না কেন, শেষপর্যন্ত আপনি একজন খেলোয়াড়। বড়জোর আপনার ব্যাটিং নৈপুণ্যের সুবাদে আপনাকে একজন উঁচুদরের শিল্পী বলা যেতে পারে। কিন্তু ভারতবর্ষ এত বড় একটা দেশ, এত বড় একটা ধারণা যার সামনে আপনি সর্দার প্যাটেলের মূর্তির পদতলে দাঁড়ানো মোদীর মতই ক্ষুদ্র।
হ্যাঁ, ব্যাট হাতে আজ আপনি রাজা কিন্তু নিশ্চিত জানবেন এ রাজত্বের আয়ু বড় অনিশ্চিত। আজ আছে কাল নেই। ক্রিকেট খেলাটাও আপনার চেয়ে অনেক অনেক বড়। যাঁর সঙ্গে প্রায়ই আপনার তুলনা করা হয়, যাঁকে একবাক্যে সব দেশের (আপনার দেশেরও) ক্রিকেটভক্তরা বলতেন “কিং রিচার্ডস”, সেই ভিভকেও অবসর নিতে হয়েছিল নেহাত পদাতিকের মত। তবু যে তিনি আজও অ্যান্টিগার বাইরেও বহু মানুষের হৃদয়ের রাজা হয়ে আছেন তা কিন্তু শুধু তাঁর রানগুলোর জন্যে নয়। রানগুলো থাকে না, মাঠে এবং মাঠের বাইরে ব্যবহারটা থেকে যায়। মাঠের ভেতর খেলার উত্তেজনায় অনেক বাড়াবাড়ি তবু মানা যায়, মাঠের বাইরের অভব্যতা দুর্নামের কারণ হয়।
অবশ্য আপনার চিন্তা নেই। কাউচে বসা এই অসভ্যতা হয়ত অনেক ভক্তের চোখে আপনাকে আরো বড় করবে। আমার শুধু চিন্তা হচ্ছে শচীন ভোগট বলে অস্ট্রেলিয় ছেলেটির জন্যে। তার তেন্ডুলকরভক্ত বাবা-মা সাধ করে ঐ নামটা রেখেছিলেন। এবার অস্ট্রেলিয়া সফরে যদি কোনভাবে সে আপনার সামনে পড়ে যায় তাকে আবার ঘাড় ধরে ভারতে নিয়ে এসে যোগীজিকে দিয়ে নাম বদলিয়ে দেবেন না তো?

ইতি

এক দুর্বিনীত ক্রিকেটপ্রেমী।

[portfolio]

দেশপ্রেম না ছাই

বাস্তবটা হল আপনি যতবড় ক্রিকেটপ্রেমীই হোন, বি সি সি আই একটি স্বশাসিত সংস্থা। আপনি তার ঘন্টা করতে পারেন। আর ক্রিকেটাররা সেই সংস্থার বেতনভুক কর্মচারী। তারা বি সি সি আই এর কাছে দায়বদ্ধ। আপনার জাত্যভিমানের বন্দুক আপনি তাদের ঘাড়ে রাখেন কোন অধিকারে?

ভারতের হয়ে খেলতে নামা ১১ জন ক্রিকেটারকে কেন আপনার জাত্যভিমান রক্ষার দায়িত্ব নিতে হয় বলুন তো? আপনি কে? ওদের কাউকে আপনি দলে নির্বাচিত করেছেন? সে যোগ্যতা আছে? ক্রিকেটাররা তো জনগণের ভোটে নির্বাচিত নন। যারা জনগণের ভোটে নির্বাচিত তাদের কাছে দায়িত্ববোধ দাবী করলে, প্রত্যেকটা কাজের জবাবদিহি চাইলে তো বলবেন দেশবিরোধী কাজ হচ্ছে। তাহলে যাদের মাইনেকড়ি আপনি দেন না, যাদের যোগ্যতার বিকাশে আপনার কোন প্রত্যক্ষ ভূমিকা নেই, যারা জাতীয় দলে নির্বাচিত হয়েছে নিজেদের যোগ্যতায় (যদি ঘুরপথেও হয়ে থাকে তাতেও তো আপনার কোন ভূমিকা নেই) তারা কেন দেখতে যাবে ম্যাচ জিতে আপনার কোন অহঙ্কার বজায় থাকল কিনা বা হেরে গিয়ে আপনার সম্মানে আঘাত লাগল কিনা?
আপনি বলবেন “আমি দেখি, পয়সা খরচা করি, সেইজন্যই ক্রিকেটে এত টাকা। তাই ওরা ধনী।” তা দ্যাখেন কেন? কেউ আপনাকে বাধ্য করেছে দেখতে? মোদীজি মাইনে পান আপনার আমার আয়করের টাকা থেকে। আইন অনুযায়ী আমি সেটা দিতে বাধ্য, তার বিনিময়ে মোদীজির সরকার আমাকে বিভিন্ন পরিষেবা দিতে বাধ্য, আমার কাছে জবাবদিহি করতে বাধ্য। কিন্তু আইন আপনাকে ক্রিকেট দেখতে বাধ্য করে না। আপনার ভাল না লাগলে আপনি ক্রিকেট দেখবেন না। পয়সা খরচ করবেন না। চুকে গেল। এভাবে যদি অনেকেই না দেখেন তাহলে বি সি সি আই, মানে কোহলি যে কোম্পানির কর্মচারী, তাদের রোজগার নিঃসন্দেহে কমবে। বিজ্ঞাপনদাতাদের কাছে কোহলির দামও কমবে। ফলে তার আয় কমবে। কিন্তু কতটা আয় হলে তার মাইনে বাড়বে বা কমবে কিম্বা কমবে কিনা সেসব কিস্যু আপনার হাতে নেই। কারণ তাকে টাকা দেয় কতকগুলো কোম্পানি। কোহলির দায় অতএব তাদের কাছে, আপনার কাছে নয়।আপনি আসলে ভাবেন বি সি সি আই আপনার সম্পত্তি তাই ক্রিকেটাররাও আপনার সম্পত্তি। এরকম ভাবেন কারণ আপনাকে ভাবানো হয়। চতুর হোটেলমালিক যেমন হোটেলে পা রাখামাত্রই বলেন “নিজের মতন করে থাকবেন, স্যার। আপনাদেরই তো হোটেল।” কিন্তু বাস্তবটা হল আপনি যতবড় ক্রিকেটপ্রেমীই হোন, বি সি সি আই একটি স্বশাসিত সংস্থা। আপনি তার ঘন্টা করতে পারেন। আর ক্রিকেটাররা সেই সংস্থার বেতনভুক কর্মচারী। তারা বি সি সি আই এর কাছে দায়বদ্ধ। আপনার জাত্যভিমানের বন্দুক আপনি তাদের ঘাড়ে রাখেন কোন অধিকারে?
জাত্যভিমান না ছাই। আসলে তো জাতিবিদ্বেষ। ভাগ্যিস রবীন্দ্র জাদেজার নাম রবিউজ্জামান নয়। তাহলেই তো নিজের দেশের ক্রিকেটারকেও বাপ চোদ্দপুরুষ উদ্ধার করে মীরজাফরের আত্মীয় বানিয়ে ফেলতেন। এমন ভাব করতেন যেন ঐ রান আউটটা না হলেই ভারত হৈ হৈ করে জিতে যেত। তা কোটি কোটি ভারতবাসীর অবদমিত ক্যানিবালিজম চরিতার্থ করার দায় বারবার ক্রিকেটারদের কেন নিতে হবে? শুধু ক্রিকেটারদেরই বা কেন?
 

%d bloggers like this: