বেলা ফুরোতে আর বসে রইলেন না শেন ওয়ার্ন

আইপিএল আজকের তরুণ ক্রিকেট দর্শকদের কাছে জলভাত। কিন্তু আমাদের মত যারা পরিণত বয়সে আইপিএল শুরু হতে দেখেছে ২০০৮ সালে, তাদের বড় বিস্ময় লেগেছিল। আমার সেই বিস্ময় বেড়ে গিয়েছিল শেন ওয়ার্ন সম্পর্কে একটা কথা শুনে।

সদ্য আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নেওয়া ওয়ার্ন সেবার আইপিএলের সবচেয়ে শস্তা দল জয়পুরের রাজস্থান রয়্যালসের একাধারে অধিনায়ক ও কোচ। নিলামের পর দলগুলোর যা চেহারা হয়েছিল, তাতে অনেকেরই ধারণা ছিল হইহই করে চ্যাম্পিয়ন হবে হায়দরাবাদের তারকাখচিত ডেকান চার্জার্স। আর জয়পুরের দলটার জায়গা হবে শেষের দিকে। ডেকান চার্জার্সের মালিক হায়দরাবাদের মহা বিত্তবান রেড্ডিরা। তাঁরা আবার ওই শহরের সবচেয়ে জনপ্রিয় ইংরেজি কাগজ ডেকান ক্রনিকলেরও মালিক। সেই কাগজের প্রতিনিধি হিসাবে মুম্বাইতে একটা আইপিএল ম্যাচ কভার করতে গিয়ে এক সর্বভারতীয় কাগজের সাংবাদিকের সাথে আলাপ হল। তার মুখেই শুনলাম রাজস্থান রয়্যালসের প্রায় অখ্যাত স্বপ্নিল অসনোদকর, রবীন্দ্র জাদেজা, ইউসুফ পাঠানদের সাথে ওয়ার্নের দারুণ ঘনিষ্ঠতা। ভারতের ঘরোয়া ক্রিকেটের এইসব চারাগাছের জন্য নাকি ওয়ার্ন বটবৃক্ষ হয়ে উঠেছেন। আমি এবং আমার কাগজের অগ্রজ সাংবাদিক কথাটা প্রথমে বিশ্বাস করিনি। কারণ অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটারদের উন্নাসিকতা জগদ্বিখ্যাত। শোনা যায় কেউ কেউ প্রবল বর্ণবিদ্বেষীও। যেহেতু ডেকান চার্জার্সে সেবার চাঁদের হাট, আমরা নিজেরাও দেখেছি, টিম ফ্লাইটে ভারতীয় ক্রিকেটাররা একসঙ্গে বসেন। অ্যাডাম গিলক্রিস্ট, অ্যান্ড্রু সাইমন্ডস, হার্শেল গিবসরা নিজেদের মধ্যেই আড্ডা মারেন। আর ওয়ার্নের মত মহাতারকা অসনোদকরদের পাত্তা দেবেন, এ-ও কি সম্ভব? কিন্তু সেই সাংবাদিক বন্ধুর বিস্তারিত বিবরণ শুনে অবিশ্বাস করার উপায় রইল না।

সে বলল, প্রথম দিকে দলের ভারতীয় ক্রিকেটাররা ওয়ার্নের সাথে কথা বলতেই ভয় পেত। একে তিনি অত বড় ক্রিকেটার, তার উপর ইউসুফরা ইংরেজি বলায় একেবারেই সড়গড় নন। সাপোর্ট স্টাফের কারোর থেকে এই সমস্যার কথা জানতে পেরে ওয়ার্ন সকলকে বলেন, যে ভাষায় তোমরা স্বচ্ছন্দ সেই ভাষাতেই আমার সাথে কথা বলবে। আমি তোমাদের দেশে কাজ করতে এসেছি, আমার দায়িত্ব বুঝে নেওয়া।

শেন ওয়ার্ন বড় ক্রিকেটার বরাবরই মানতাম, কারণ গণ্ডমূর্খ না হলে মানতে সবাই বাধ্য। তাঁর প্রতি যে বিরূপতা ছিল, তা বিদায় নিল সেইদিন।

কেন ছিল বিরূপতা?

আসলে আমাদের কৈশোর ও প্রথম যৌবন কেটেছে ওয়ার্নের বোলিং দেখতে দেখতে। বলা ভাল, শচীন বনাম ওয়ার্ন দ্বৈরথ দেখতে দেখতে। আমাদের খেলা দেখতে শেখায় দল নির্বিশেষে নৈপুণ্যকে কুর্নিশ জানানোর পাঠ খুব বেশি ছিল না। আজকের কদর্য পার্টিজানশিপের সূচনা সে আমলেই হয়েছিল। আসলে আমাদের জন্যে কোনো মতি নন্দী লিখতেন না, প্রাঞ্জল বিশ্লেষণে বাঙালি পাঠককে বুঝিয়ে দিতেন না শচীন, সিধুরা অনায়াস দক্ষতায় তাঁকে মাঠের বাইরে পাঠালেও ওয়ার্ন একজন ক্ষণজন্মা শিল্পী। আমাদের সময়ে ইডেন উদ্যান থেকে রেডিওতে ভেসে আসত না ক্রিকেটরসিক অজয় বসুর কণ্ঠ। আমাদের টিভির ইডেন তখন কাগজের ভাষাতেও গার্ডেন্স হয়ে গেছে। ক্রিকেটের রোম্যান্স অনুভব করতে আমরা শিখলাম কই? ওয়ার্নের বলে শচীনের তিনরকম সুইপ, ক্রিজ ছেড়ে কোণাকুণি বেরিয়ে এসে ওয়াইড লং অন দিয়ে ছয় মারায় আমরা হাততালি দিয়েছি মূলত ভারতীয় ব্যাটার অস্ট্রেলিয় বোলারের বলে চার আর ছয় মেরেছে বলে। আমাদের মধ্যে যারা ইংরেজিতে দড় ছিল না, তারা পিটার রোবাকও পড়তে পারেনি। ওয়ার্ন কত বড় শিল্পী তা বোঝা দূরে থাক, শচীন কত বড় শিল্পী তা-ও তারা তখন বড় একটা বুঝতে পারেনি। তাছাড়া আমাদের সময়টা সুনীল গাভাসকর, গুন্ডাপ্পা বিশ্বনাথদের যুগ নয়। বিপক্ষ দলের প্রিয় ক্রিকেটারের নামে বিশ্বসেরা ব্যাটার নিজের ছেলের নাম দেবেন, সে সংস্কৃতি তখন ক্রমশ লুপ্ত হচ্ছে; আগ্রাসন শব্দটা চালু হয়ে গেছে। কখন ব্যাটার একটা মনোরম লেট কাট মারবে বা স্পিনারের একটা বল ব্যাটারকে হাস্যকরভাবে পরাস্ত করবে, আর উইকেট পড়ুক না পড়ুক ওই বলটাই মনে রেখে দেবে দর্শক — সেসব দিন তখন চলে গেছে। আমরা দীর্ঘকাল খেলায় জয়, পরাজয়ের পরেও যে কিছু থাকে তা অনুভব করিনি। অস্ট্রেলিয়া যখন ১৯৯৭-৯৮ মরসুমে ভারত সফরে এল, ওয়ার্ন নিজের খাবার হিসাবে সেদ্ধ বিনের টিন নিয়ে এসেছেন দেশ থেকে — এই খবর পড়ে আমরা যারপরনাই উত্তেজিত হয়েছি। আমাদের উত্তেজিত করা হয়েছে। কাগজে লেখা হয়েছে এটা ভারতের অপমান, শচীন আমাদের সবার হয়ে এর প্রতিশোধ নেবেন। তাই সে মরসুমে যেখানে অস্ট্রেলিয়াকে পেয়েছেন, ক্ষমতার শীর্ষে থাকা শচীন সেখানেই ওয়ার্নসুদ্ধু অজিদের একেবারে দুরমুশ করে দেওয়ায় আমরা কিছুটা অতিরিক্ত আনন্দ পেয়েছি।

কিন্তু আমাদের একটা জিনিস ছিল যা পূর্বসুরীরা পাননি। সেটা হল কেবল টিভি। তাই আমরা ভারতীয় ব্যাটিংয়ের হাতে ওয়ার্নের নাকানি চোবানি খাওয়া (১৪ টেস্টে ৪৩ উইকেট; গড় ৪৭.১৮, ৫ উইকেট মাত্র একবার) যেমন দেখেছি, তেমনি পৃথিবীর যে কোনো মাঠে, যে কোনো ধরনের পিচে অন্য দেশগুলোর মাথা ঘুরিয়ে দেওয়া দেখার সৌভাগ্যও হয়েছে। ১৯৯২ সালে সিডনিতে ভারতের বিরুদ্ধে যখন ওয়ার্নের অভিষেক হল, তখনো আমাদের এখানে ঘরে ঘরে কেবল টিভি ছিল না। সোনালি চুলের একটা ২২ বছরের ছেলেকে বেধড়ক মারছেন রবি শাস্ত্রী আর শচীন — এই দৃশ্য আমরা কেবল রাতের খাবার খেতে খেতে দূরদর্শনের হাইলাইটসে দেখেছি। পরের বছর মাইক গ্যাটিংকে বোকা বানানো ‘শতাব্দীর সেরা বল’-ও লাইভ দেখেছিল খুব অল্পসংখ্যক ভারতীয়।

কিন্তু পুরনো সুরার মত স্বাদু, অবসরের দিকে এগিয়ে চলা ওয়ার্নের ২০০৫ সালে এজবাস্টনে অ্যান্ড্রু স্ট্রসকে জোকারে পরিণত করা বলটা আমরা অনেকেই লাইভ দেখেছি।

ভাগ্যিস দেখেছি! উসেন বোল্টের দৌড়, মাইকেল ফেল্পসের সাঁতার, রজার ফেডেরারের টেনিস দেখার মত যে কটা জিনিস যখন ঘটেছে তখনই দেখেছি বলে আমাদের মধ্যে যারা আশি-নব্বই বছর বাঁচবে তারা শেষ বয়সে গর্ব করতে পারবে, তার একটা হল ওয়ার্নের বোলিং।

তাঁর কিন্তু আব্দুল কাদিরের মত রহস্যময় গুগলি ছিল না। কিন্তু যে বলের পর বল একই জায়গায় ফেলতে পারে এবং একই জায়গা থেকে লেগ ব্রেক কখনো বেশি, কখনো কম ঘোরাতে পারে — তার গুগলিটা তেমন জোরদার না হলেই বা কী? কেবল বল ঘোরানোর পরিমাণের হেরফের করে যে ওয়ার্ন একটা দলের গোটা ব্যাটিং ধসিয়ে দিতে পারতেন, তা সবচেয়ে বেশি টের পেয়েছে অস্ট্রেলিয়ার চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ইংল্যান্ড। কখনো অফস্টাম্পের অনেক বাইরের বল নিশ্চিন্তে প্যাডে নিতে গিয়ে পায়ের পিছন দিয়ে বোল্ড হয়েছেন স্ট্রস, তো কখনো বল বেশি ঘুরবে ভেবে ব্যাট বাড়িয়ে দিয়ে মাটিতে পড়ে দ্রুত গতিতে সোজা চলে আসা ফ্লিপারে এল বি ডব্লিউ হয়েছেন ইয়ান বেল। ভারত ছাড়া অন্য দলের বিরুদ্ধে ওয়ার্ন ডানহাতি ব্যাটারকে ওভার দ্য উইকেট বল করলেই তাঁকে মনে হত সাক্ষাৎ নিয়তি। যখন ইচ্ছা একটা বল ভাসিয়ে দেবেন লেগ স্লিপের দিকে, অত দূরে যাচ্ছে দেখে ব্যাটার নিশ্চিন্তে ছেড়ে দেওয়ার কথা ভাববেন অথবা চার মারার মোক্ষম সুযোগ ভেবে সুইপ করতে যাবেন। আর অমনি বলটা মাটিতে পড়ে বিদ্যুৎ গতিতে উল্টো দিকে ঘুরে স্টাম্প ভেঙে দেবে। এভাবে বোকা বনেছেন মাইকেল আর্থারটনের মত দুঁদে ব্যাটারও। ভারতীয়দের মধ্যে সম্ভবত একমাত্র এমএসকে প্রসাদকেই এরকম অপ্রস্তুতে পড়তে হয়েছিল।

আবার রাউন্ড দ্য উইকেট বল করা ওয়ার্নের বিরুদ্ধে অতি সাবধানী হতে গিয়ে হাসির পাত্র হয়ে পড়েছিলেন নিউজিল্যান্ডের ক্রেগ ম্যাকমিলান।

আমাদের কেবল টিভি ছিল, এখন ইউটিউবও আছে। যতবার খুশি এইসব মুহূর্ত দেখা যায়। অনেকে যেমন বড়ে গুলাম আলি খাঁ সাহেবের গান বারবার শোনে; ফিরে ফিরে দেখে সত্যজিৎ, ঋত্বিক, মৃণাল বা কুরোসাওয়ার ছবি।

কিন্তু ওয়ার্ন আবার ওতেও শেষ হন না। বাউন্ডারির বাইরেও তিনি একজন বেহিসাবী শিল্পী। জীবন ভোগ করবার, নিজেকে অপচয় করবার বিপুল ক্ষুধা তাঁর। এ ব্যাপারে ওয়ার্নের তুলনা চলতে পারে একমাত্র দিয়েগো মারাদোনার সাথে। ওয়ার্ন ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে যত উইকেট নিয়েছেন, ব্রিটিশ ট্যাবলয়েডগুলোকে মুখরোচক খবর আর ছবি জুগিয়েছেন বোধহয় তার চেয়েও বেশি। কখনো একাধিক যৌনকর্মীর সাথে যৌন অ্যাডভেঞ্চার, কখনো এলিজাবেথ হার্লির সাথে প্রেম। কখনো বুকিকে দিয়ে দেন পিচ সম্পর্কে তথ্য, কখনো নিষিদ্ধ ডাইইউরেটিক নিয়ে বিশ্বকাপ খেলার সুযোগ হারান। তিনি উপস্থিত থাকলে পাদপ্রদীপের আলো তাঁকে ছেড়ে থাকতে পারত না। আবার সেই আলোয় এক ঝাঁক অর্বাচীনকে আলোকিত করে তারকাখচিত আইপিএল জিতে নিয়েছিলেন ওয়ার্ন। মতি নন্দীর হয়ত সে ঘটনা দেখলে মনে পড়ত বুড়ো আর্চি ম্যাকলারেনের এক দল অপেশাদারকে নিয়ে ওয়ারউইক আর্মস্ট্রংয়ের সর্বগ্রাসী দলকে হারিয়ে দেওয়ার কথা। মহাকাব্য তো নয়ই, এ যুগ এমনকি খণ্ডকাব্যের যুগও থাকছে না। এখন ফেসবুক কবিতার যুগ, তাই টি টোয়েন্টিতেই কাব্যিকতা খুঁজতে হয় আমাদের। এ যুগে ওয়ার্ন বেমানান। তাঁর ধারাভাষ্য তাই অনেকেরই মনঃপূত হয়নি, রিচি বেনোর মত যত বড় ক্রিকেটার তত বড় ধারাভাষ্যকার হয়ে উঠতে যে ওয়ার্ন পারবেন না তা বেশ বোঝা যাচ্ছিল। তবে তাতে শিল্পী ওয়ার্নের দাম কমে না।

লেগস্পিন এমনিতেই বড় কঠিন শিল্প। বলা হয়, জন্মগত প্রতিভা না থাকলে ও জিনিসটা হয় না। ওয়ার্নের প্রজন্মে অত্যাশ্চর্যভাবে বিশ্ব ক্রিকেটে ছিলেন তিনজন সর্বোচ্চ মানের স্পিনার — ভারতের অনিল কুম্বলে, পাকিস্তানের মুস্তাক আহমেদ আর অস্ট্রেলিয়ার ওয়ার্ন। এঁদের অবসরের পরে পাকিস্তানের ইয়াসির শাহ ছাড়া আর তেমন লেগস্পিনার উঠে আসেননি। আসলে চটজলদি ক্রিকেটের রমরমার যুগে ওয়ার্নের মত বিপুল প্রতিভা না থাকলে লেগস্পিন করে টিকে থাকাই মুশকিল। এখন ফ্লাইট দিলে, লেগ ব্রেকের পর লেগ ব্রেক করে গেলে ছোট্ট মাঠে ব্যাটারের কাজ সহজ হয়ে যাবে। ওয়ার্ন পারতেন ওসব করেও একদিনের ক্রিকেটে হ্যাটট্রিক করতে, বিশ্বকাপে (১৯৯৯) সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি হতে। টি টোয়েন্টিতেও ৭৩ ম্যাচে ওভার পিছু আটের কম রান দিয়ে সত্তরটা উইকেট নিয়েছিলেন। অ্যাডাম জাম্পা, আদিল রশিদরা পারবেন না। আর টি টোয়েন্টিতে ভাল করতে না পারলে আজকাল টেস্ট খেলার সুযোগও পাওয়া শক্ত। এখন বন্যেরা বনে সুন্দর, লেগস্পিন ইউটিউবে। ওয়ার্নকে আর ক্রিকেটের দরকার ছিল না বোধহয়।

বেলা ফুরোতেই তিনি চলে গেলেন। অন্য অনেক ব্যাপারে ওয়ার্ন একেবারেই অস্ট্রেলিয়সুলভ ছিলেন না, কিন্তু ঠিক সময়ে চলে যাওয়ার ব্যাপারে খাঁটি অস্ট্রেলিয়। তাঁর শেষ টেস্ট সিরিজ ছিল ২০০৬-০৭ অ্যাশেজ। আর্মস্ট্রংয়ের সেই দলের পর অস্ট্রেলিয়া প্রথমবার ৫-০ অ্যাশেজ জিতল। সেটা সম্ভব হত না অ্যাডিলেডে দ্বিতীয় টেস্টের পঞ্চম দিন সকালে ওয়ার্ন ইংল্যান্ডের কোমর ভেঙে না দিলে।

নাগরিক ডট নেট-এ প্রকাশিত

IPL auction: Where privilege holds court

Suhana and Aryan Khan look so like their father that even somebody who has stopped following showbiz and news, shall know they are Shah Rukh Khan’s children the moment he/she sees them. But this Saturday afternoon, while watching the Indian Premier League (IPL) auction I was wondering who the other girl beside them was at the Kolkata Knight Riders table. Wonder does not last in the age of social media. Within a few minutes, I came to know that she is Juhi Chawla’s daughter Jhanvi. The revelation came through a Twitter thread where people were arguing over dynasty. Some were scandalised that Jhanvi, Suhana and Aryan were judging the ability of some hard-working professionals whilst being present at the auction just by privilege of birth. The other lot argued, it was not their fault that they were born to rich and famous parents. Some went to the extent of saying: their parents worked hard, yours didn’t. Deal with it.

I found the conversation more comical than caustic because it reminded me what Rahul Gandhi, India’s most hated dynast, had said in Parliament just ten days ago. “There are two Indias — one for the rich, one for the poor — and the gap between the two was widening,” he had said. “Today, the earnings of 84 percent of Indians have dwindled, pushing them towards poverty.” I couldn’t help laughing. The IPL auction was making people from this 84 percent argue for and against the privilege of the 16 per cent.

We came to know in 2019 that India’s unemployment rate is at a 45-year-old high. The pandemic has only worsened the situation. If Gautama Buddha were alive today and the mother of a jobless youth went to him asking for her son’s/daughter’s job, Buddha would have asked her to bring a handful of mustard from a home where joblessness or pay cuts have not hit. The lady’s only hope would be the hotel where the IPL auction was held. Even during this distress, 204 cricketers found themselves worth Rs. 550 crore.

I am not going to put you off by talking about migrant labourers. I don’t need to. Because even Indian cricketers outside the IPL fold are part of the 84 per cent. If you look around, you will find enough reports about domestic cricketers deep in debt running their family in absence of first-class cricket. But IPL, supposedly, is the fountain that feeds the stream of domestic cricket. That fountain kept flowing during the pandemic, even shifting countries in the midst of waves of crisis. Which all means that the Ranji Trophy not taking place should matter little financially to cricketers, groundsmen, umpires, scorers et al. But it did. The Board, busy keeping the fountain alive, did not care about the stream. Compensation (and a much-needed hike) was announced only in September 2021. One can clearly see the two Indias here. IPL’s India deals in hundreds of crores, the rest of Indian cricket has to suffer an agonising wait for a few lakhs.

Like the debate over dynasty, the point about hard work and talent will obviously rear its beautiful head here. Some will definitely say, “Those who have enough talent and work hard play IPL.” Of course, T20 is the best form of cricket to judge talent and hard work. Don’t let banal commentators and star cricketers doing lip service tell you otherwise. This is not the era where cricketers will be happy receiving Rs one lakh each from a Lata Mangeshkar-led fundraiser, after winning the World Cup. It is the age of Chris Gayle and Kieron Pollard, who are comfortable not playing for their country as they can make a killing playing in T20 leagues all over the world. It is also the age of Liam Livingstone and Tim David, who may never stake a claim to cricketing immortality but are treasured more than World Cup-winning Eoin Morgan and the Bradmanesque Steve Smith. Talent and hard work are so key to IPL success that Paul Valthaty, Manvinder Bisla became footnotes soon after big success; Pravin Tambe succeeded at an age when life insurance policies mature, with a physique Virat Kohli still has nightmares about. There is also the story of hat-trick man Ajit Chandila, who like many others, shone only in IPL. But we shall not talk about these forgottens lest it opens a can of worms.

After every IPL auction, we invariably read some rags to riches stories. A player who has played only tennis ball cricket, someone who was not a professional cricketer even six months back or somebody who has never been selected for any first-class side. In short, you do not necessarily need to come through the dusty ranks of the domestic system to get into the IPL. It wholly depends on your marketability and ability (specifically in short format). A modern day, glorified slave market, the IPL auction is. Then you land on the biggest stage possible and rake in the moolah. Through a system that reduces a rigorous discipline into a TRP-driven melodrama. The other, and more problematic aspect of IPL is that nobody is sure of the logic with which and IPL auction plays out.

Obviously, it would be wrong to grudge young men of this poor, jobless country the chance to get rich. But we tend to forget, rags to riches stories hold charm only because there are more rags than riches. Today India has more billionaires than ever, along with unprecedented unemployment. Talent needs opportunity, to announce its presence and work, to work hard. Both are in short supply for us — the 84 per cent. Celebrating the pomp of IPL and arguing about the privilege of its elite is actually a nice way to laugh at ourselves. The joke actually is on us.

Published on https://newsclick.in

One for the team: Logic behind Kohli’s sacking as ODI skipper

Sounds like a man who thinks the captain is not named by selectors but by the skipper himself. Such thoughts are always wrong in sports

Photo courtesy: Internet

During our college days in Bengal, there were some journalists whose articles we used to devour like a newly-wed man devouring luchi (Bengali version of puri) and mutton at in-laws’ place. Behind-the-scenes story of the Indian cricket team’s dressing room was their USP. Sourav Ganguly was the hero in those stories. Naturally, when captaincy was snatched away from him in 2005, Ganguly became a tragic hero — a man more sinned against than sinning.

While Greg Chappell was the villain, the “et tu Brute” dialogue was directed at Rahul Dravid. They made their debut together, Ganguly gave him the big gloves to keep him in the ODI side, didn’t he? How could he betray Dada and become Greg’s ally! This was the discourse we were fed, and we believed it.

It took many of us years to realise that the point to ponder in the Chappell-Ganguly saga was not personal rivalry but team cause. Ganguly was 33 in 2005 and his batting form was dipping. After winning the Natwest Trophy final in 2002, his team kept losing crunch matches, the most important one being the 2003 World Cup final. A fresh man at the helm could give the team a new direction.

The real conflict was between two cultures — one of hero worship, the other of putting the team before individuals. Chappell’s attempt to establish the latter in Indian cricket ended in failure with India’s shocking group-stage exit from the 2007 ICC World Cup. Those in the know say there were other reasons as well for that unmitigated disaster. Whatever it is, the man cannot be grudged today as the cricketers he had placed at two ends of that tug-of-war, have come together to do what he meant to.

No matter what we were made to believe back in the day, it is now clear that Ganguly does not think of himself as Julius Caesar and Dravid as Brutus. It is possible that he did when it all happened, but looking back with age on his side, he obviously realised team cause had to take precedence. And Dravid had the safest hands to hold that cause. Otherwise, he as the BCCI president, would not have put his old mate in charge of Team India’s supply line first, the team itself next.

There are people who would oppose this way of looking at Virat Kohli’s ODI captaincy being snatched away, saying Ganguly was a struggling batter back then, Kohli is not. But the parallels are too many to ignore. Kohli is also 33 and though he still averages a monumental 59.07 in ODIs, there has been a dip. His last ODI century came on August 14, 2019 in Port of Spain. After that match, he has averaged 43.26 in 15 matches till now. It is still good enough for most batters and that is why his place in the team is not in question, unlike Ganguly. But his repeated failure to drive the team towards trophies mirrors Ganguly’s difficulties in the last days of his captaincy. Unless one thinks winning trophies is not important, this warrants a change in leadership.

Much is being made of Kohli’s winning percentage as captain, ignoring the fact that bilateral ODI series have lost much of their significance. In the age of T20Is, even the numbers of ODIs are going down. More and more bilateral tours are being planned with more T20Is than ODIs. Even the bilateral T20Is are less important than franchise cricket. Nowadays, all teams look at bilateral white-ball series as a build-up to the world event. There is a World T20 every two years and a 50-over World Cup every four. In short, a team is playing four white-ball world events in five years. In fact, in the eight years between 2024 and 2031, this number will go up to eight, including the Champions Trophy. How do bilateral wins matter then?

One may pertinently ask, why sack him now? After all, the last ODI India played under Kohli was in March. What new failure has come his way in the meantime? The answer lies not in the recent past but in the near future. Kohli has given up on the T20I captaincy and Ravi Shastri has left, which allows a new management to shape a new vision for the 2022 World T20. After that, there will be less than a year left for the 50-over World Cup. It would be too late to change the captain, the need of which has been explained already. In case that does not satisfy you, there is the board president’s explanation of course: there cannot be two captains for two white-ball formats.

That brings us to the question, why did Kohli relinquish T20I captaincy? If Ganguly is to be believed, the board wanted him to stay, and nobody knew before the World T20 what a disaster it was going to be. Kohli’s own explanation, in his Instagram post, was “I feel I need to give myself space to be fully ready to lead the Indian team in Test and ODI cricket.”

That sounds like a man who thinks the captain is not named by selectors but by the skipper himself. Such thoughts are always wrong in sports. Steve Waugh realised it a year before the 2003 World Cup, despite leading Australia to the trophy in the previous edition of the tournament. Australia were looking at the future of the team, not the greatness of their captain.

Future! How can 34-year-old Rohit Sharma be the future? This rebuttal is more interesting than correct, because it helps us question the progress India’s ODI side has made under Kohli-Shastri combine. When Australia removed Waugh, the man to replace him was 29-year-old Ricky Ponting but we do not have an option other than Rohit. Because except him and Jasprit Bumrah, there is not one cricketer in the ODI side who is experienced enough for the job, and Bumrah has never even been the vice-captain. Shikhar Dhawan is out with lack of form, Hardik Pandya does not know how fit he is. Nobody else has been given a long uninterrupted run in the playing XI.

KL Rahul’s talent was never in question, and he made his debut in 2016. In spite of that he is only 38 ODIs old. Under Kohli, everyone from Ambati Rayudu to Vijay Shankar has played at No. 4 and failed, but Rahul has mostly warmed the bench. In the end, he had to don the big gloves for his chance. Shreyas Iyer was picked, dumped and has now been picked again. Better not talk about what happened to Manish Pandey after that match-winning century Down Under, or why past-his-prime Dinesh Karthik played the 2019 World Cup. Ravichandran Ashwin was never in the scheme of things under Kohli. Even Ravindra Jadeja was out of favour for some time as Yuzvendra Chahal and Kuldeep Yadav were touted as the next big thing. First Yadav fell out of favour for a handful of bad shows, then the inexplicable axe fell on Chahal. So which team has captain Kohli built in so many years? What was the vision? Clearly, the team was going nowhere.

To come back to the parallels, Ganguly’s captaincy had also gone to a player his age. That did not produce desirable results in ODIs, but success is never guaranteed. Besides, Team India did not have a rich supply line back then. One hopes at least that is not a myth waiting to be busted. If it does turn out to be a myth, there will be ample scope to criticise the BCCI. Putting team cause over reputation cannot be faulted today.

Originally published here

https://www.newsclick.in/one-team-sound-logic-behind-virat-kohlis-sacking-odi-skipper

Troll comes full circle for Kohli and how

What is now happening to the Indian cricketers, is more or less, what happens to an army which has lost a war.

Photo courtesy: Internet

During his international career, Virat Kohli has mostly seen the bright side of fame. Only since last Saturday has the dark side started to make its presence felt. The brickbats he is receiving would be fine had the reason only been Team India’s abject failure in the ongoing ICC T20 World Cup. But he is being panned more because of his counter-attack in defence of teammate Mohammad Shami. In fact, brickbat would be a horrible euphemism for the abuses being hurled at Kohli, and shamefully, his 10 month daughter.

However, India is not made of right-wing trolls alone. Many on social media also hailed Kohli for his words. More importantly, the media wrote reams of praise. While doing that, some have even compared his statements with Sunil Gavaskar’s well-known heroic act of saving a family from a violent mob during the 1993 Mumbai riots. This comparison is symptomatic of our times. Virtual reality has so overwhelmed us that we think words are as good as, if not better than, actions. They are not. And that is a valid enough reason we need to look at Kohli’s outburst more critically.

There is not one word in that statement which a sane human being would disagree with. However, it would be naivete to dismiss so many people just as Rs. 2 trolls, especially because many of them were ardent Team India and Kohli lovers till the other day. Therefore, we need to ask why so many cricket fans in today’s India think losing a game of cricket is the end of the world.

Bitter truth is, those who run Indian cricket have themselves injected this idea into fans that cricket is a lot more than a game and the other team is not our opponent but enemy. Kohli, too, has played a big part in forming this idea.

The Kohlis and the Dhonis may not want it that way, but their life is their message for the fans. They not only copy the star’s batting stance, hair cut or mannerism, but also his behaviour on and off the field. They may not take a politician’s words seriously but shall trust every word the favourite cricketer says. In the age of 360-degrees, 24×7 sports coverage, they shall copy the pointed finger, the middle finger, the chest thump, the fist pump, the aggression, the frustration, the shout, the pout. Whether that is the right thing to do is a different question.

Three years back, the Virat Kohli Official App was launched. A video was released for its promotion where Kohli was answering questions sent by random people. One person had written in, saying he thought Kohli was an overrated batter and he enjoyed watching English and Australian batters more. Kohli’s reply was “OK, I don’t think you should live in India then… you should go and live somewhere else, no. Why are you living in our country and loving other countries? I don’t mind you not liking me but I don’t think you should live in our country and like other things. Get your priorities right.”

This remark, obviously, goes against the spirit of cricket which prompts the Caribbeans to write songs praising Gavaskar, Australians to name their children Sachin and Pakistani Umar Draz to hoist the Tricolour because he is a Kohli fan. But neither the Board of Control for Cricket in India (BCCI), nor any former cricketer told Kohli that his behaviour was unsporting. Naturally, that incident would prove to a common fan that praising cricketers from other countries is blasphemy.

There was more to that comment than absence of sporting spirit though. It was in line with and eerily similar to the “go to Pakistan” jibe critics of the central government have been targeted with since 2014. India’s otherwise liberal cricket writers somehow missed this point and are now aghast that people are being arrested for supporting a different team.

The not-just-a-game theme was taken up a notch in 2019, when Kohli and Co. played a One-Day International in Ranchi on March 8 wearing army camouflage caps. It was to honour the victims of the Pulwama terror attack. Interestingly, nobody in the army or the government found it disrespectful to the jawans who died that the caps not only had the BCCI logo on them but also the sponsor’s logo. The team went to town about their love for the army and how it was Mahendra Singh Dhoni, an honorary lieutenant colonel in the Indian territorial army, who came up with the idea. Thus, in popular imagination, the cricket team could acquire the same place as the army.

Once again, no ex-cricketer, no expert, not even the International Cricket Council (ICC) found anything objectionable in this. The ICC regarded it just “as part of a charity fundraising effort” because the Indian team also donated their match fees to the National Defence Fund. But it became too much even for them during the World Cup later that year when lieutenant colonel Dhoni sported the dagger logo of his regiment on his wicket-keeping gloves. When the ICC objected to it, who all spoke out for Dhoni? BCCI Committee of Administrator chief Vinod Rai and sports minister Kiren Rijiju. While Rai’s logic was that it is not an army symbol, the minister tweeted “… the issue is connected with the sentiments of the country, the interest of the nation has to be kept in mind.”

Clearly, even a logo on the gloves of a cricketer who is just an honorary member of a paramilitary force is connected to the sentiments of the country. So much so that even a minister intervenes if it is asked to be removed. One could rightfully ask, why did Dhoni need to place such a sensitive logo on his gloves? So many army men have represented India in different sports over the years, including Major Dhyan Chand and Tokyo Olympics gold medallist Neeraj Chopra. If none of them needed to sport any army insignia, why Dhoni? The only possible answer could be his wish to be something more than a cricketer. Or was the board trying to elevate cricketers to a different level? Nothing wrong with that if they can handle the pressure of being treated as army men by the fans.

What is now happening to the Indian cricketers, is more or less, what happens to an army which has lost a war. Soldiers of a defeated army hardly get any love or respect in their country and the choicest abuses are reserved for the general. For Kohli & Co., one can only hope the online trolling stays online. Millions of Indians know how bad things get when the hate produced online spills on to the streets. The street-fighting body language this Indian team has acquired under Kohli could work before Joe Root & Co, may not before mobs Delhi saw last year. One can possibly emulate Gavaskar’s courage on the field with talent and hardwork, emulating his courage before rioters is way more difficult.

Originally published here

https://www.newsclick.in/troll-comes-full-circle-virat-kohli-and-how

ক্রিকেট লেখক

এখন তো আর কেউ সেঞ্চুরি করে আউট হওয়া ব্যাটসম্যান সম্পর্কে লিখবে না “গ্রেটদের মধ্যে জায়গা পেতে গেলে ম্যাচ শেষ করে আসতে হয়”

তখনো সৌরভ গাঙ্গুলি লর্ডসে লাটসাহেবি করেননি। অস্ট্রেলিয়া সফরে মাত্র একটা খেলায় সুযোগ পেয়ে গোড়াতেই এল বি ডব্লিউ হয়ে মাথা নীচু করে ঘরে ফিরে এসেছেন। “বাঙালি ক্রিকেট খেলতে পারে না” এটাকে স্বতঃসিদ্ধ করে নিয়েছে গোটা ভারত। তখন সদ্য পাড়ার মাঠে বড়দের সঙ্গে ক্যাম্বিস বলে খেলার লাইসেন্স পেয়েছি। বড়রা কেউ কেউ কলার তুলে আজহারকে নকল করে। আমার চেয়ে সামান্য ছোট একটি ছেলে, গোলগাল চেহারা, বয়সের তুলনায় একটু বেশিই ভাল ব্যাট করে। বড় ছেলেরাও আউট করতে ঘেমে ওঠে। তাকে “শচীন” বলে ডাকা শুরু হয়ে গেছে। বাড়ির উল্টোদিকে লাইব্রেরি। লাইব্রেরির গায়েই আমাদের খেলার মাঠ। আমাদের শচীন চার, ছয় মারলে বারবার সেই লাইব্রেরিতে বল ঢুকে যায়। লাইব্রেরিয়ান পিসির বকা কানে না তুলে আমরা চুপচাপ বল নিয়ে আসি। ঐ লাইব্রেরি থেকেই নিয়ে এসে গোগ্রাসে গিলি মতী নন্দীর ‘ননীদা নট আউট’। শান্তিপ্রিয় বন্দ্যোপাধ্যায়ের ক্রিকেট শেখার বই পড়ে ওখানে যেমন ছবি আঁকা আছে তেমন করে ধরার চেষ্টা করি ব্যাটটা। রঞ্জি সিং এর মত গ্লান্স করার চেষ্টা করি, কিছুতেই ব্যাটে বলে হয় না। কিন্তু মনের উড়ান ঠেকাবে কে? আমাকে উড়ি। যে দুজনের ডানায় ভর দিয়ে সবচেয়ে বেশি উড়ি তাঁদের একজন ধীমান দত্ত, অন্যজন গোপাল বসু।
নির্মেদ গদ্যে জিওফ্রে বয়কট থেকে সাগরময় সেনশর্মা — সকলকে ঘরের লোক করে তোলেন ঐ দুজন, আজকালের খেলার পাতায় আর ‘খেলা’ নামের খেলাধুলোর পত্রিকায়৷ প্রতিদিন বিকেলে নিজের খেলা শেষ হওয়ার পরেও ওঁদের টানে ততক্ষণ কাটাই লাইব্রেরির রিডিং রুমে, যতক্ষণ না বাড়ির জানলা থেকে কড়া গলায় মায়ের ডাক আসে।
অনেকদিন পর্যন্ত জানতামই না গোপাল বসু একজন প্রাক্তন ক্রিকেটার, এবং নেহাত হেলাফেলা করার মত খেলোয়াড় ছিলেন না। খুঁটিনাটি বিশ্লেষণে এবং কেউই সমালোচনার ঊর্ধ্বে নন (সৌরভ ছাড়া) — এই প্রত্যয়ে ততদিনে গোপাল বসু আমার চোখে ক্রিকেট লেখক হিসাবে প্রতিষ্ঠিত।
বহু বছর পরে খবরের কাগজের খেলার পাতায় যখন কাজ করতে এসেছি, তখন অগ্রজ ক্রিকেট সাংবাদিকদের মুখে তাঁর খেলোয়াড় জীবনের গল্প শুনেছি। তিনি কতবড় ক্রিকেটার ছিলেন না ছিলেন তার নৈর্ব্যক্তিক বিচার করা হয়ত সম্ভব নয়, কারণ তিনি সারা বছর টিভিতে নানা স্তরের ক্রিকেট লাইভ দেখানো যখন শুরু হয় তার অনেক আগের যুগের লোক। পরিসংখ্যান আছে কিন্তু নেভিল কার্ডাস তো কবেই লিখে গেছেন “স্কোরবোর্ড একটা গাধা” (এই উক্তিটাও গোপাল বসুর লেখাতেই প্রথম পড়েছিলাম)। অতটা চরমপন্থী না হলেও স্কোরবোর্ড যে সবটা বলে না সেটা অস্বীকার করা যুক্তিযুক্ত নয়। অতএব সেকথা থাক। গোপাল বসু ক্রিকেট লেখক হিসাবে যা, আমার কাছে সেই যথেষ্ট।
এই তারকাবন্দনার যুগে গোপাল বসুদের অভাব বোধ করি। এখন তো আর কেউ সেঞ্চুরি করে আউট হওয়া ব্যাটসম্যান সম্পর্কে লিখবে না “গ্রেটদের মধ্যে জায়গা পেতে গেলে ম্যাচ শেষ করে আসতে হয়।”

আমাদের মেয়েরা

indianteam

লক্ষ লক্ষ অন্য শুক্রাণুর সঙ্গে লড়াই করে আপনাকে মায়ের জরায়ুতে ঢুকতে হয়েছিল। তারপর আট-ন মাসের নিশ্চিন্ত বিশ্রাম, মায়ের শরীর থেকে পুষ্ট হওয়া, অবশেষে ভূমিষ্ঠ হওয়া। তারপর অন্তত এক-দেড় দশক জীবনযুদ্ধ কী আপনি টের পাননি কারণ আপনার হয়ে যুদ্ধটা করেছেন আপনার বাবা-মা, নিকটাত্মীয় — যদি আপনি পুরুষ হন। যদি আপনি ভারতে জন্মানো মহিলা হন, তাহলে কিন্তু আপনার লড়াইটা মায়ের জরায়ুতে ঢুকে পড়েই শেষ হয়নি। আপনি যে ভূমিষ্ঠ হবেনই তার কোন নিশ্চয়তা ছিল না। দেশের আইন আছে, তার ফাঁকও আছে। সেই ফাঁক দিয়ে কোন অসাধু ডাক্তারের সাহায্যে আপনাকে যে কোনদিন হত্যা করা হতেই পারত। এরকম রোজ, প্রতি সেকেন্ডে ভারতে ঘটছে। এখনো ঘটছে।
অর্থাৎ কাল লর্ডসে আপনি যে এগারোজনকে আকাশনীল জার্সি গায়ে লড়তে দেখলেন, তারা আসলে এগারোটি কন্যাভ্রূণ যাদের হত্যা করা হয়নি। এগারোটি শিশুকন্যা যাদের জন্মানোর পরেই মুখে ধান পুরে দিয়ে বা গরম দুধে চুবিয়ে মেরে ফেলা হয়নি। এগারোটি শিশু যারা, কি ভাগ্যিস, তিনবছর বয়সেই কোন তথাকথিত বাবার লালসার শিকার হয়ে প্রাণ হারায়নি। এগারোটা মেয়ে যারা ঋতুমতী হওয়ার আগে থেকেই ট্রেনে বাসে বাপের বয়সী লোকের কনুইয়ের গুঁতো খেয়েছে। এগারোটা মেয়ে যাদের খেলোয়াড় হয়ে ওঠা দেখে কেউ না কেউ বাপ-মাকে বলেছে “কেমন ব্যাটাছেলেদের মত চেহারা হয়েছে। এর আর বিয়ে দিতে পারবে?” এগারোটা মেয়ে যাদের নিয়ে গত পরশু অব্দি আমাদের কারো তেমন আগ্রহ ছিল না কিন্তু কাল জিতে গেলে “আমাদের মেয়েরা” বলে দাবী করতাম এবং এখন উড়িয়ে দিতে গিয়ে বলছি “কেন নিন্দে করব না? এটা একটা টিম? এখানেও মেয়ে বলে রিজার্ভেশন নাকি?”
নিশ্চিত জানবেন, মিতালী, ঝুলনরা জিতলে আমাদের অবদান তাতে ঘন্টা আর হারলেও আমাদের কোন অধিকার নেই নিন্দা করার। কারণ আমরা এরপরেও বাড়ির মেয়েটা ক্রিকেট খেলতে চাইলে বলব “ছেলেদের সঙ্গে মেয়েরা খেলে না।”

 

দেশপ্রেম না ছাই

বাস্তবটা হল আপনি যতবড় ক্রিকেটপ্রেমীই হোন, বি সি সি আই একটি স্বশাসিত সংস্থা। আপনি তার ঘন্টা করতে পারেন। আর ক্রিকেটাররা সেই সংস্থার বেতনভুক কর্মচারী। তারা বি সি সি আই এর কাছে দায়বদ্ধ। আপনার জাত্যভিমানের বন্দুক আপনি তাদের ঘাড়ে রাখেন কোন অধিকারে?

ভারতের হয়ে খেলতে নামা ১১ জন ক্রিকেটারকে কেন আপনার জাত্যভিমান রক্ষার দায়িত্ব নিতে হয় বলুন তো? আপনি কে? ওদের কাউকে আপনি দলে নির্বাচিত করেছেন? সে যোগ্যতা আছে? ক্রিকেটাররা তো জনগণের ভোটে নির্বাচিত নন। যারা জনগণের ভোটে নির্বাচিত তাদের কাছে দায়িত্ববোধ দাবী করলে, প্রত্যেকটা কাজের জবাবদিহি চাইলে তো বলবেন দেশবিরোধী কাজ হচ্ছে। তাহলে যাদের মাইনেকড়ি আপনি দেন না, যাদের যোগ্যতার বিকাশে আপনার কোন প্রত্যক্ষ ভূমিকা নেই, যারা জাতীয় দলে নির্বাচিত হয়েছে নিজেদের যোগ্যতায় (যদি ঘুরপথেও হয়ে থাকে তাতেও তো আপনার কোন ভূমিকা নেই) তারা কেন দেখতে যাবে ম্যাচ জিতে আপনার কোন অহঙ্কার বজায় থাকল কিনা বা হেরে গিয়ে আপনার সম্মানে আঘাত লাগল কিনা?
আপনি বলবেন “আমি দেখি, পয়সা খরচা করি, সেইজন্যই ক্রিকেটে এত টাকা। তাই ওরা ধনী।” তা দ্যাখেন কেন? কেউ আপনাকে বাধ্য করেছে দেখতে? মোদীজি মাইনে পান আপনার আমার আয়করের টাকা থেকে। আইন অনুযায়ী আমি সেটা দিতে বাধ্য, তার বিনিময়ে মোদীজির সরকার আমাকে বিভিন্ন পরিষেবা দিতে বাধ্য, আমার কাছে জবাবদিহি করতে বাধ্য। কিন্তু আইন আপনাকে ক্রিকেট দেখতে বাধ্য করে না। আপনার ভাল না লাগলে আপনি ক্রিকেট দেখবেন না। পয়সা খরচ করবেন না। চুকে গেল। এভাবে যদি অনেকেই না দেখেন তাহলে বি সি সি আই, মানে কোহলি যে কোম্পানির কর্মচারী, তাদের রোজগার নিঃসন্দেহে কমবে। বিজ্ঞাপনদাতাদের কাছে কোহলির দামও কমবে। ফলে তার আয় কমবে। কিন্তু কতটা আয় হলে তার মাইনে বাড়বে বা কমবে কিম্বা কমবে কিনা সেসব কিস্যু আপনার হাতে নেই। কারণ তাকে টাকা দেয় কতকগুলো কোম্পানি। কোহলির দায় অতএব তাদের কাছে, আপনার কাছে নয়।আপনি আসলে ভাবেন বি সি সি আই আপনার সম্পত্তি তাই ক্রিকেটাররাও আপনার সম্পত্তি। এরকম ভাবেন কারণ আপনাকে ভাবানো হয়। চতুর হোটেলমালিক যেমন হোটেলে পা রাখামাত্রই বলেন “নিজের মতন করে থাকবেন, স্যার। আপনাদেরই তো হোটেল।” কিন্তু বাস্তবটা হল আপনি যতবড় ক্রিকেটপ্রেমীই হোন, বি সি সি আই একটি স্বশাসিত সংস্থা। আপনি তার ঘন্টা করতে পারেন। আর ক্রিকেটাররা সেই সংস্থার বেতনভুক কর্মচারী। তারা বি সি সি আই এর কাছে দায়বদ্ধ। আপনার জাত্যভিমানের বন্দুক আপনি তাদের ঘাড়ে রাখেন কোন অধিকারে?
জাত্যভিমান না ছাই। আসলে তো জাতিবিদ্বেষ। ভাগ্যিস রবীন্দ্র জাদেজার নাম রবিউজ্জামান নয়। তাহলেই তো নিজের দেশের ক্রিকেটারকেও বাপ চোদ্দপুরুষ উদ্ধার করে মীরজাফরের আত্মীয় বানিয়ে ফেলতেন। এমন ভাব করতেন যেন ঐ রান আউটটা না হলেই ভারত হৈ হৈ করে জিতে যেত। তা কোটি কোটি ভারতবাসীর অবদমিত ক্যানিবালিজম চরিতার্থ করার দায় বারবার ক্রিকেটারদের কেন নিতে হবে? শুধু ক্রিকেটারদেরই বা কেন?
 

%d bloggers like this: