সকলেই চুপ করে থাকবে, শামিকে মানিয়ে নিতে হবে

পাকিস্তান ম্যাচে হিন্দুরা খারাপ পারফরম্যান্স করলে সন্দেহ করার কিছু নেই, মুসলমানকে সন্দেহ করতে হবে — এই মানসিকতার বিরুদ্ধে কুম্বলে, শচীনরা একটাও কথা বলেননি।

ঘটনা ১

রাজস্থানের বাসিন্দা নাফিসা আত্তারি গত মঙ্গলবার তাঁর চাকরি থেকে বরখাস্ত হয়েছেন, বুধবার গ্রেপ্তার হয়েছেন। কারণ তিনি সোশাল মিডিয়ায় রবিবারের ভারত-পাকিস্তান ম্যাচে পাকিস্তান জিতে যাওয়ার পর আনন্দ প্রকাশ করেছিলেন[১ ]।
ঘটনা ২

কাশ্মীরের শ্রীনগরের শের-এ-কাশ্মীর ইনস্টিটিউট অফ মেডিকাল সাইন্সেস আর গভমেন্ট মেডিকাল কলেজের ছাত্রছাত্রী, ওয়ার্ডেন ও ম্যানেজমেন্টের লোকেদের বিরুদ্ধে কুখ্যাত ইউএপিএ আইনে মামলা দায়ের করেছে পুলিস। অভিযোগ পাকিস্তানের জয়ে উল্লাস করা, বাজি পোড়ানো ইত্যাদি। অভিযুক্তদের চিহ্নিত করা হয়নি, তবে পুলিস বিষয়টি খতিয়ে দেখছে। ক্যাম্পাসে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদও করা হয়েছে [২]।
ঘটনা ৩

রবিবার ভারত-পাক ম্যাচের পর একটি দক্ষিণপন্থী ফেসবুক পেজ থেকে পোস্ট করা হয় যে মুসলমান পাড়ায় পাকিস্তান জেতার পর বাজি পোড়ানো হয়েছে। পুলিস তদন্ত করে দেখে যে ওই পাড়ায় সেদিন বিয়ে ছিল এবং বাজি আসলে সেখানেই পোড়ানো হচ্ছিল। যারা ফেসবুক পোস্টটি করেছিল, তারা দোষ স্বীকার করে লিখিতভাবে ক্ষমা প্রার্থনা করেছে। পুলিস তাদের প্রত্যেককে দিয়ে ২৫ হাজার টাকার বন্ড জমা করিয়েছে [৩]।
ঘটনা ৪

উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ বৃহস্পতিবার ঘোষণা করেছেন পাকিস্তানের জয় যারা উদযাপন করেছে তাদের বিরুদ্ধে সিডিশন ল, অর্থাৎ দেশদ্রোহবিরোধী আইন প্রয়োগ করা হবে [৪ ]। আগ্রাতে কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ইতিমধ্যেই ।

সব ঘটনা উল্লেখ করা গেল না, নিশ্চিতভাবেই অনেক ঘটনা বাদ পড়ে গেল। পাঠকরা নিজেদের জানা ঘটনা এই তালিকায় জুড়ে নিতে পারবেন। এমন ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তালিকা তৈরি করা সম্ভব হলে তা কুড়ি বিশের বিশ্বকাপে ভারতীয় দলের একমাত্র মুসলমান ক্রিকেটার মহম্মদ শামির কাছে পাঠানো যেতে পারে। তাতে তাঁর মানসিক যন্ত্রণার কিছু উপশম হলেও হতে পারে। কারণ এই ঘটনাগুলো জানলে তিনি বুঝতে পারবেন, পাকিস্তানের কাছে ভারত হেরে যাওয়ার পর থেকে তাঁকে যা সহ্য করতে হয়েছে তা ভারতের সাধারণ মুসলমানদের দুর্গতির তুলনায় কিছুই নয়। তাঁকে নাহক অনলাইন গালাগালি সহ্য করতে হয়েছে, জামিন অযোগ্য ধারায় পুলিশ কেস তো আর হয়নি। চাকরিও খোয়াতে হয়নি। বিশ্বাসঘাতকতার অভিযোগ উঠেছে মাত্র, সে অভিযোগের ভিত্তিতে অন্তত গ্রেপ্তার করা হয়নি। শামির নিয়োগকর্তা যে ক্রিকেট বোর্ড, সে বোর্ডের সেক্রেটারি যখন খোদ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পুত্র, তখন দেশে ফিরলেও যে শামিকে ৩.৫ ওভারে ৪৩ রান দেওয়ার জন্য গ্রেপ্তার করা হবে না তা নিশ্চিত করে বলা যায়। সে নিশ্চয়তা এ মুহূর্তে ভারতের অধিকাংশ ইসলাম ধর্মাবলম্বীর নেই।

ফুটবলপ্রেমীরা জানেন ১৯৬৯ সালে একটা ফুটবল ম্যাচের জন্য হন্ডুরাস আর এল সালভাদোরের মধ্যে যুদ্ধ হয়েছিল [৫]। মানে খেলার জন্য যুদ্ধ হওয়ার ইতিহাস আছে। কিন্তু ভারত-পাক ক্রিকেট ম্যাচ হল যুদ্ধের জন্য খেলা — গত পাঁচ দিনের ঘটনাবলী তা প্রমাণ করে দিয়েছে। পাকিস্তানের গণতন্ত্র নিয়ে অতি বড় পাকিস্তানিও গলা তুলে কথা বলতে সঙ্কোচ বোধ করেন। আর ভারত এখন এত মহান গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র, যে ক্রিকেট ম্যাচে অন্য দেশের দলকে সমর্থন করলে চাকরি হারাতে হয়, গ্রেপ্তার হতে হয়, এমনকি দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করার অভিযোগেও অভিযুক্ত হতে হয়। কিন্তু সে কথা বললে অর্ধেক বলা হয়। কোনো ভারতীয় অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, এমনকি ইংল্যান্ডকেও সমর্থন করতে পারেন। জেলে যেতে হবে না। যত দোষ পাকিস্তানকে সমর্থন করলেই। কেবল অন্ধ ক্রিকেটভক্তরা নয়, ক্রিকেটাররা পর্যন্ত তা-ই মনে করেন। প্রাক্তন ক্রিকেটার গৌতম গম্ভীর রবিবারই টুইট করেছিলেন, যারা ভারতের জয়ে বাজি পোড়াচ্ছে তারা ভারতীয় হতে পারে না [৬]। তিনি অবশ্য এখন বিজেপি সাংসদ, তাই এমন মন্তব্য তাঁর থেকে অপ্রত্যাশিত নয়, কিন্তু বীরেন্দ্র সেওয়াগও তীর্যক টুইট করতে ছাড়েননি। তাঁর বক্তব্য দীপাবলিতে ভারতের বেশকিছু এলাকায় বাজি নিষিদ্ধ করা হয়েছে, অথচ পাকিস্তান জেতার পরে লোকে বাজি পোড়াচ্ছে। তারা বোধহয় ক্রিকেটের জয় উদযাপন করছে। তাহলে দীপাবলিতেই বা বাজি পোড়ালে দোষ কী? এই ভণ্ডামির কী প্রয়োজন? সব জ্ঞান দীপাবলির বেলাতেই কেন [৭]? সীমান্তের ওপারের ওঁরাও কিছু কম যান না। এক মন্ত্রী বলেছেন এই জয় ইসলামের জয়। প্রাক্তন ক্রিকেটার ওয়াকার ইউনিস লাইভ টিভিতে বলেছেন, রিজওয়ানের ব্যাটিংয়ের চেয়েও তৃপ্তিদায়ক ব্যাপার হল হিন্দুদের মধ্যে গিয়ে নমাজ পড়া [৮]। অর্থাৎ এতগুলো লোক তক্কে তক্কে ছিল যুদ্ধ করবে বলে — ধর্মযুদ্ধ।

কিন্তু এতেও সবটা বলা হল না। কারণ পাকিস্তানে এখন পর্যন্ত বিরাট কোহলি চার-ছয় মারার সময়ে উল্লাস করার জন্য কাউকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে খবর নেই। ওয়াকারকেও তাঁর মন্তব্যের জন্য দুঃখপ্রকাশ করে টুইট করতে হয়েছে [৯]। কিন্তু সেওয়াগ, গম্ভীররা ওসবের ধারে কাছে যাননি। কারণ পাকিস্তানি মন্ত্রী, প্রাক্তন ক্রিকেটাররা যেমন শত্রুপক্ষকে আক্রমণ করেছেন, এঁরা মনে করেন এঁরাও তেমনই শত্রুপক্ষকে আক্রমণ করেছেন। কে সেই শত্রু? উত্তরটা খুব সোজা। কানে বাজির আওয়াজ এলেই যাদের সম্বন্ধে মনে হয় নির্ঘাত ওরাই পোড়াচ্ছে এবং পাকিস্তান জিতেছে বলেই পোড়াচ্ছে, তারাই শত্রু, তারাই দেশদ্রোহী। অর্থাৎ আপনি ভারতীয় হয়ে পাকিস্তানকে সমর্থন করেও বেঁচে যেতে পারেন, যদি মুসলমান না হন।

নেহাত গা জোয়ারি মন্তব্য করা হল? মুসলমানদের দিকে ঝোল টেনে কথা বলা হল মনে হচ্ছে? মহম্মদ শামিকে রাম, শ্যাম, যদু, মধুর ‘গদ্দার’ ইত্যাদি বলা দেখেই সে সন্দেহ দূর হয়ে যাওয়ার কথা। যদি তারপরেও সন্দেহ থাকে, তাহলে শামির সমর্থনে ভারতীয় প্রাক্তন ক্রিকেটারদের টুইটগুলো লক্ষ করবেন। গম্ভীর, সেওয়াগ তো বটেই; অনিল কুম্বলে [১০], ভারতীয় ক্রিকেটের মৌনীবাবা শচীন তেণ্ডুলকার [১১]— সকলেই শামির পক্ষে টুইট করেছেন। সকলেরই বক্তব্য মোটামুটি এক। শামি চ্যাম্পিয়ন বোলার; খেলার মাঠে একটা খারাপ দিন যে কোনো খেলোয়াড়ের যেতে পারে; শামি, আমরা তোমাকে ভালবাসি, ইত্যাদি। একজনও কিন্তু বলেননি, শামি ভারতের হয়ে ক্রিকেট খেলে, আমরাও ভারতের হয়ে খেলেছি। ওকে সন্দেহ করা আর আমাদের সন্দেহ করা একই কথা। যারা তা করে তাদের মত ফ্যান আমাদের দরকার নেই। ইংল্যান্ডের ফুটবল দলের অধিনায়ক হ্যারি কেন কিন্তু পেনাল্টি শুট আউটে গোল করতে ব্যর্থ কৃষ্ণাঙ্গ ফুটবলারদের সমর্থনে ঠিক এই কথাই বলেছিলেন। শচীনরা বলেননি, কারণ ওঁরা খুব ভাল করে জানেন শামি মুসলমান বলেই সে সন্দেহের পাত্র। উইকেট না পেলেও, মার খেলেও যশপ্রীত বুমরা, ভুবনেশ্বর কুমার, রবীন্দ্র জাদেজা সন্দেহের পাত্র নয়। পাকিস্তান ম্যাচে হিন্দুরা খারাপ পারফরম্যান্স করলে সন্দেহ করার কিছু নেই, মুসলমানকে সন্দেহ করতে হবে — এই মানসিকতার বিরুদ্ধে কুম্বলে, শচীনরা একটাও কথা বলেননি। তাঁরা তবু মুখ খুলেছেন, অধিনায়ক ডাকাবুকো কোহলির থেকে পাওয়া গেছে বিরাট নীরবতা। সমালোচকদের বিরুদ্ধে কথার ফুলঝুরি ছোটানো কোচ রবি শাস্ত্রীরও মুখে কুলুপ। এমনকি টিমের বড়দা (মেন্টরের বাংলা প্রতিশব্দ পরামর্শদাতা। ধোনির জন্য সেটা বড্ড ম্যাড়মেড়ে নয়?) মহেন্দ্র সিং ধোনিও চুপ।

কেনই বা চুপ থাকবেন না? ওঁরাও তো আমার, আপনার মত কাগজ পড়েন, টিভি দেখেন, সোশাল মিডিয়া ঘাঁটেন। ফলে ওঁরা দেশের অবস্থা সম্পর্কে যথেষ্ট ওয়াকিবহাল। ওঁরা হয়ত জানেন গুজরাটের আনন্দ (আমুল খ্যাত) শহরের মঙ্গলবারের ঘটনা [১২]। সেখানে একটি নতুন হোটেল, রেস্তোরাঁ ও ব্যাঙ্কোয়েট হলের উদ্বোধন আটকাতে বিরাট জনতা হাজির হয় গত পরশু। তারা গঙ্গাজল দিয়ে এলাকা শুদ্ধিকরণের প্রয়াস করেছে। স্লোগান দিয়েছে, ভারতে থাকতে হলে জয় শ্রীরাম বলতে হবে। হিন্দু এলাকায় মুসলমান মালিকের হোটেল থাকবে, এ অনাচার তারা মানতে রাজি নয়। খবরে প্রকাশ, হোটেলটির তিন মালিকের একজন হিন্দু। কিন্তু তা যথেষ্ট নয়।

ধোনি ঝাড়খন্ডের মানুষ, দিব্যি বাংলা বলতে পারেন। রাঁচিতে তাঁর ঘনিষ্ঠ লোকজনদের মধ্যেও বাঙালি আছেন। তাঁর প্রতিভা প্রথম চিনেছিলেন কেশব ব্যানার্জি নামের এক বাঙালি মাস্টারমশাই। ফলে ধোনি হয়ত ত্রিপুরার খবরও রাখেন। হয়ত ভাল করেই জানেন, ওই রাজ্যে কীভাবে মুসলমান খ্যাদানো চলছে কদিন ধরে আর পশ্চিমবঙ্গের বাঙালি মালিকানায় চলা সংবাদমাধ্যম চোখ বুজে আছে। এই পরিবেশের মধ্যে ধোনির কী দায় পড়েছে মুসলমান সতীর্থের হয়ে মুখ খোলার?

এত ঘটনা না জানলেও আইপিএল খেলা তারকা ক্রিকেটাররা বিলক্ষণ জানেন, এক গ্রাম মাদক উদ্ধার না হওয়া সত্ত্বেও শাহরুখ খানের ছেলেকে তিন সপ্তাহ কারাবাস করতে হল। ইতিমধ্যে তদন্তকারী অফিসারের বিরুদ্ধে নানা কেলেঙ্কারির অভিযোগ উঠে এসেছে। যে দেশে অর্ণব গোস্বামীর জামিনের জন্য মধ্যরাতে আদালত বসতে পারে, সে দেশে আদালতের সময়ই হয় না মাসের পর মাস, বছরের পর বছর উমর খালিদের জামিনের আবেদন শোনার। শার্জিল ইমাম যে কথা বলেননি তার জন্য, সিদ্দিক কাপ্পান যে প্রতিবেদন লেখেননি তার জন্য, মুনাওয়ার ফারুকি যে কৌতুক করেননি তার জন্য এবং আরিয়ান খান যে মাদক নেননি তার জন্য — কারাবাস করতে পারেন। একজন আদানির বন্দরে কয়েক হাজার গ্রামের মাদক পাওয়া গেলেও তেমন হেলদোল হয় না আইনের রক্ষকদের, একজন খানকে রেভ পার্টিতে পাওয়া গেলেই সে কেবল মাদকাসক্ত নয়, মাদক ব্যবসায়ী হয়ে যায় সারা দেশের চোখে — এ কথা আমাদের মত ক্রিকেট তারকারাও জানেন। তাই তাঁরা চুপ করেই থাকবেন।

শামিকে মানিয়ে নিতে হবে। তাঁর চেয়ে অনেক দূরে, অনেক নীচে থাকা ভারতীয় মুসলমানরা প্রতিনিয়ত যেমন মানিয়ে নিচ্ছেন।

তথ্যসূত্র

১। ইন্ডিয়া টুডে
২। দ্য ওয়ায়ার
৩। টুইটার -উমেশ কুমার রায়
৪। টুইটার – PTI News
৫। বিবিসি
৬। টুইটার – গৌতম গম্ভীর
৭। টুইটার – বীরেন্দ্র সহবাগ
৮। টুইটার – ওয়াকার ইউনিস
৯। টুইটার
১০। টুইটার – অনিল কুম্বলে
১১। টুইটার – শচীন তেন্ডুলকর
১২। দ্য ওয়ায়ার

https://nagorik.net এ প্রকাশিত। ছবি ইন্টারনেট থেকে।

কালোর জন্যে কাঁদা, অথচ সাদা মনে কাদা

এই একটা ভারত-পাক ম্যাচে আমাকে এক ব্যাচমেট ‘পাকি’ বলে সম্বোধন করেছিল। কলেজজীবনের অনেক স্মৃতির মধ্যে সেইটা আজও ভুলতে পারিনি।

গো জরা সি বাত পর বরসোঁ কে ইয়ারানে গয়ে
লেকিন ইতনা তো হুয়া কুছ লোগ পহচানে গয়ে।

খাতির গজনভির এই বিষণ্ণ গজল মেহদি হাসানের গলায় একাধিকবার শুনেছি। গত কয়েক বছরে সামাজিক-রাজনৈতিক মতামতের কারণে বন্ধুবিচ্ছেদ হওয়ার অভিজ্ঞতা হয়েছে অনেকেরই। যতবার কারও এই অভিজ্ঞতার কথা শুনি বা নিজের এ অভিজ্ঞতা হয়, ততবার গজলের এই প্রথম পংক্তিদুটো (পরিভাষায় মতলা) মনে পড়ে। কিন্তু এ বছর মার্চ মাসে টের পেলাম, এই পংক্তিগুলোর বেদনা সঠিকভাবে অনুভব করা আসলে আমার কল্পনাবিলাস। এই বেদনা শতকরা একশো ভাগ অনুভব করেন যাঁরা, তাঁদের কথা আমি জানতে পারি না, জানার চেষ্টাও করি না বিশেষ। সামান্য কারণে বহু বছরের বন্ধুত্ব আর রইল না। তা না-থাকুক, কিছু লোককে তো চিনতে পারা গেল। কোন বেদনায় অক্ষম মলমের কাজ করে এই উপলব্ধি, তা স্পষ্ট বুঝতে পারলাম কয়েকমাস আগে।

দেশের বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে কোনওদিন মুখ না-খোলা ক্রিকেটাররা যখন একযোগে মোদি সরকার-প্রণীত কৃষি আইনের সপক্ষে টুইট করতে শুরু করলেন, তখন এক জায়গায় লিখেছিলাম, ভারতীয় ক্রিকেট দল একসময় সব ভারতীয়ের ছিল, এখন আর নেই। কীভাবে সকলের ছিল, তা বোঝাতে ১৯৯৯ সালের ৩১ জানুয়ারি চিপকে শচীন তেন্ডুলকরের অসাধারণ ১৩৬ রানের ইনিংস দেখার অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেছিলাম। তখন ক্লাস ইলেভেনে পড়ি, কড়া নিয়মের হোস্টেলে থাকি। আমরা কয়েকজন পাঁচিল টপকে খেলা দেখতে গিয়েছিলাম। লেখায় সেই বন্ধুদের কথাও ছিল। প্রকাশিত লেখাটা তাদের পাঠাতে ইচ্ছে হয়েছিল। পাঠিয়ে জিজ্ঞেস করলাম, “মনে পড়ে?” দেখলাম, সকলেরই সেই দিনটা ছবির মতো মনে আছে। তবে আমাকে নাড়িয়ে দিল এক মুসলমান বন্ধুর উত্তর। সে লিখল, “খুব সুন্দর লেখা। এই একটা ভারত-পাক ম্যাচে আমাকে এক ব্যাচমেট ‘পাকি’ বলে সম্বোধন করেছিল। কলেজজীবনের অনেক স্মৃতির মধ্যে সেইটা আজও ভুলতে পারিনি।”

আমার বন্ধুবিচ্ছেদের অভিজ্ঞতা এর চেয়ে বেদনাদায়ক নিশ্চয়ই নয়। কারণ, মানসিক বিচ্ছেদ ঘটে গিয়ে থাকলেও এরপরেও সেই ব্যাচমেটের সঙ্গে বন্ধুত্বের অভিনয় করে যেতেই হয়েছিল আমার মুসলমান বন্ধুটিকে।

এসব কথা আজ তুলছি কেন? তুলছি, কারণ ইউরো ফাইনালে ইংল্যান্ডের কৃষ্ণাঙ্গ ফুটবলার বুকায়ো সাকা, মার্কাস র‍্যাশফোর্ড আর জেডন স্যাঞ্চো পেনাল্টি শুটআউটে গোল করতে না-পারার পর যে বর্ণবিদ্বেষী আক্রমণের শিকার হয়েছেন, তার জোরালো প্রতিবাদ দেখতে পাচ্ছি ভারতীয়দের মধ্যে থেকে। তাতে কোনও অন্যায় নেই। বর্ণবিদ্বেষের প্রতিবাদ করাই উচিত, কিন্তু মুশকিল হল, আমাদের প্রতিবাদের মূল সুর “আমরা কিন্তু এরকম নই।” কথাটা যদি সত্যি হত, তা হলে আমার বন্ধুর অভিজ্ঞতা ওরকম হত না। প্রাক-বাবরি ভারতের কথা জানি না, কিন্তু নব্বইয়ের দশকে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচের দিন শুধু যে আমার বন্ধুর মতো সাধারণ ক্রিকেটভক্তদেরই অকথা-কুকথা শুনতে হত তা নয়, মুসলমান ক্রিকেটারদের সন্দেহ করাও চলত পুরোদমে।

তখন শারজায় আব্দুল রহমান বুখাতিরের রমরমা। চেতন শর্মার শেষ বলে জাভেদ মিয়াঁদাদের ছক্কার পর থেকে কেবল শারজা নয়, বিশ্বকাপ ছাড়া অন্য যে কোনও মঞ্চে ভারত-পাকিস্তানের খেলায় পাকিস্তান না-জিতলেই অঘটন। সেই দিনগুলোতে আমাদের চোখে ‘জলজ্যান্ত খলনায়ক’ ছিলেন মহম্মদ আজহারউদ্দিন। এমনিতে তাঁর কব্জির মোচড় আর অসামান্য ফিল্ডিং দক্ষতার কারণে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে ভক্তকুল বিরাট। কিন্তু পাকিস্তান ম্যাচ মানেই অন্য ব্যাপার। ওই ম্যাচে শচীন সৎভাবেই শূন্য রানে আউট হতে পারেন, দিনটা তাঁর নয় বলে মনোজ প্রভাকর ব্যাটসম্যানের হাতে যথেচ্ছ মার খেতে পারেন, মনঃসংযোগ নষ্ট হয়ে কপিলের হাত থেকে ক্যাচ পড়ে যেতে পারে। কিন্তু আজহার ব্যর্থ হলেই সেটা ‘ইচ্ছাকৃত’ বলে মনে করা হত। আজ এ-কথা বললে অনেকেই বলবেন, ওটা একেবারেই মুসলমান-বিদ্বেষের ব্যাপার নয়। পরে তো সিবিআই তদন্তে প্রমাণ হল যে, আজহার একজন অসাধু ক্রিকেটার। অতএব, “আমরা আন্দাজ করতাম বলেই ওরকম বলতাম”। মুশকিল হল, সিবিআই তদন্তে আজহারের জুয়াড়ি-যোগ প্রমাণিত, তিনি মুসলমান বলে পাকিস্তানকে ম্যাচ ছেড়ে দিতেন এমনটা আদৌ প্রমাণিত হয়নি। তা ছাড়া, সেই সময়ের রথী-মহারথীদের কথাবার্তা যা লিপিবদ্ধ আছে, তা থেকে মোটেই প্রমাণ করা যায় না যে, তাঁরা জানতেন আজহার অসাধু।

ঐতিহাসিক রামচন্দ্র গুহ ভারতীয় ক্রিকেট নিয়ে তাঁর ‘আ কর্নার অফ আ ফরেন ফিল্ড’ বইয়ে লিখেছেন, একবার আজহারের শতরান এবং ভারতের জয়ের পর খোদ বাল ঠাকরে তাঁকে “জাতীয়তাবাদী মুসলিম” আখ্যা দিয়েছিলেন। শুধু কি তাই? অযোধ্যার রামমন্দির আন্দোলনের হোতা লালকৃষ্ণ আদবানি স্বয়ং ১৯৯৮ সাধারণ নির্বাচনের প্রচারে বেরিয়ে মুসলমান যুবকদের বলেছিলেন, তাঁদের আজহার কিংবা এ আর রহমানের মতো হওয়ার চেষ্টা করা উচিত। সুতরাং এখন “আগেই বলেছি” বললে চিঁড়ে ভিজবে না। আরও বড় কথা হল, যারা আজহারকে সর্বদা সন্দেহ করত, তারা কিন্তু ঘুণাক্ষরেও অজয় জাদেজা বা নয়ন মোঙ্গিয়াকে সন্দেহ করেনি। কেন?

প্রশ্নগুলো সহজ আর উত্তরও তো জানা…

ভারত আজ অবধি বিশ্বকাপে কখনও পাকিস্তানের কাছে হারেনি বলে আমরা বড় জাঁক করে থাকি। প্রথম তিনটে ম্যাচেই কিন্তু অধিনায়ক ছিলেন আজহারউদ্দিন। তিনবারের একবারও তিনি ব্যাট হাতে পুরোপুরি ব্যর্থ হননি। সিডনিতে ১৯৯২ সালে কম রানের ম্যাচে ৩২, বাঙ্গালোরে ১৯৯৬ সালে ২২ বলে ২৭, আর ম্যাঞ্চেস্টারে ১৯৯৯ সালে গুরুত্বপূর্ণ ৫৯ রান করেন। সে যা-ই হোক, দুর্নীতির দায়ে ধরা পড়ে তিনি নির্বাসিত হওয়ার পর যদি মুসলমান ক্রিকেটারদের সন্দেহ করা শেষ হয়ে যেত, তা হলে আর আজ এত কথা উঠত না।

সেই কেলেঙ্কারির পরে সৌরভ গাঙ্গুলির হাতে নতুন করে গড়ে ওঠা ভারতীয় দল দেশের ক্রিকেটের দুটো ধারা একেবারে বদলে দিয়েছিল। এক, বিদেশের মাঠে নির্বিবাদে হেরে যাওয়া; আর দুই, পাকিস্তানের কাছে হারের পর হার। দুটোর কোনওটার পিছনেই ভারতীয় দলের ইসলাম ধর্মাবলম্বী ক্রিকেটারদের অবদান ভুলে যাওয়া সম্ভব নয়। ২০০৫-’০৬-এর পাকিস্তান সফরে প্রথম টেস্টে করাচিতে ইরফান পাঠানের হ্যাটট্রিক ভোলা যাবে? নাকি তার আগের সফরে চতুর্থ একদিনের ম্যাচে প্রায় তিনশো রান তাড়া করতে নেমে গদ্দাফিতে ১৬২ রানে পাঁচ উইকেট চলে যাওয়ার পর রাহুল দ্রাবিড়ের (অপরাজিত ৭৬) সঙ্গে মহম্মদ কাইফের (৭১) জুটি ভুলতে পারবেন কোনও ক্রিকেটরসিক? দেশ-বিদেশের মাঠ মিলিয়ে ভারতীয় ক্রিকেটের সবচেয়ে অবিশ্বাস্য জয়গুলোর একটা হল লর্ডসে ন্যাটওয়েস্ট ট্রফির ফাইনাল। সেই জয়ের কাণ্ডারীও তো এই কাইফ। আর জাহির খান তো প্রায় প্রতিষ্ঠান হয়ে গেলেন শেষপর্যন্ত। জাভাগল শ্রীনাথ অস্তাচলে গেলেন, আশিস নেহরা উপর্যুপরি চোট-আঘাতের কারণে নিজের প্রতিভার প্রতি সুবিচার করতে পারলেন না। মাঝখান থেকে ভারতীয় বোলিং আক্রমণের নেতা হয়ে উঠলেন জাহির। ভারতের বহু টেস্ট জয়ে তাঁর ঝলমলে ভূমিকা। শ্রীনাথ, নেহরার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বল করে ২০০৩ বিশ্বকাপ প্রায় তুলে দিয়েছিলেন অধিনায়কের হাতে।

এসব ইতিহাসে থেকে যাবে, কিন্তু আমাদের হৃদয় পরিবর্তনে খুব একটা প্রভাব ফেলেছে কি না তা বলা শক্ত। গদ্দাফিতে কাইফের ওই ইনিংস যখন চলছে, তখন আমাদের বাড়িতে বসে আমাদেরই সঙ্গে খেলা দেখছিল মাত্র বারো-তেরো বছরের এক ছেলে। সে ভবিষ্যদ্বাণী করেছিল, “ও পাকিস্তানকে হারতে দেবে না। পাকিস্তান তো ওদেরই টিম।” সেই ছেলেমেয়েরা যে আজ বাবা-মা হয়েছে সে কথা খেয়াল হত, যখন অতিমারির আগে শুনতাম কোনও শিশু স্কুল থেকে বাড়ি ফিরে বলেছে, “জানো তো বাবা, আমাদের ক্লাসের টিফিনে অমুক মাংস নিয়ে আসে।” যে বাবা-মায়েরা টুইটারে ইরফান পাঠানকে বলেন “গো টু পাকিস্তান”, তাঁদের ছেলেমেয়েদের এরকম আচরণে অবাক হওয়ার কিছু দেখি না।

আমার বন্ধুর ঘটনাটার মতো আমার অভিজ্ঞতাটাকেও স্রেফ একজনের অভিজ্ঞতা বলে উড়িয়ে দেওয়া যায়। কিন্তু এমন অভিজ্ঞতা যে ঘরে-ঘরে। ওই যে গোড়াতেই বলেছি, আমরা জানতে চাই না বলেই জানতে পারি না। পিউ রিসার্চ সেন্টার-এর সাম্প্রতিক সমীক্ষা যেমন দেখিয়েছে আর কি। আমরা ভারতীয়রা যে যার নিজের খোপে থাকতে পারলেই খুশি। কে কোথায় কোন অবিচারের শিকার হল, তাতে আমাদের কী? সাকা, র‍্যাশফোর্ড, স্যাঞ্চোর দুঃখে আমাদের কান্নাকে তাই কুম্ভীরাশ্রু না-ভেবে পারছি না।

ওঁদের তিনজনের পিছনে লেগেছে অসভ্য শ্বেতাঙ্গ ইংরেজরা, আবার পক্ষে দাঁড়িয়েছেন শ্বেতাঙ্গ অধিনায়ক হ্যারি কেন। দ্ব্যর্থহীন ভাষায় টুইট করেছেন, এরকম সমর্থক তিনি চান না। কোচ গ্যারেথ সাউথগেটও শ্বেতাঙ্গ। তিনিও এই ট্রোলিং-এর নিন্দা করেছেন। উইদিংটনে র‍্যাশফোর্ডের মুরাল বিকৃত করা হয়েছিল। নতুন করে তা সাজিয়ে দিয়েছেন শ্বেতাঙ্গরা। দক্ষিণপন্থী এবং শ্বেতাঙ্গ প্রধানমন্ত্রীও ওই তিনজনের পাশে। ইংলিশ ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনও বিবৃতি দিয়ে নিন্দা করেছে। অথচ কী অভাগা আমাদের ওয়াসিম জাফর! এই তো সেদিনের ঘটনা। উত্তরাখণ্ডের কিছু ক্রিকেটকর্তার রঞ্জি দলের কোচ জাফরকে পছন্দ হচ্ছিল না। তাই তাঁরা সংবাদমাধ্যমকে বলে দিলেন, জাফর সাম্প্রদায়িক। মুসলমান দেখে দলে সুযোগ দেন, ড্রেসিংরুমে মৌলবী ঢোকান, টিম হাড্‌লে ‘জয় হনুমান’ বলতে দেন না। জাফর প্রত্যেকটা অভিযোগের যথাযোগ্য জবাব দিয়েছিলেন, কর্তারা প্রত্যুত্তর দিতে পারেননি। কিন্তু যা হওয়ার হয়ে গিয়েছে। অনলাইনে জাফরকে অকথ্য গালিগালাজ করা হয়েছে। মুসলমান মানেই যে বদমাইশ তারই প্রমাণ হিসাবে তুলে ধরা হয়েছে তাঁকে। গোটা সময়টা ভারতের তারকা ক্রিকেটাররা মৌনীবাবা হয়ে ছিলেন। শচীন তেন্ডুলকরের মত মহীরুহ, যিনি আবার জাফরের সঙ্গে কেবল ভারতীয় দল নয়, মুম্বই দলেও খেলেছেন, তিনিও স্পিকটি নট। অমোল মুজুমদার, মনোজ তিওয়ারির মতো দু-একজন ছাড়া সকলেই যেন ধ্যানস্থ ছিলেন। আর বাংলার গৌরব সৌরভের নেতৃত্বাধীন ক্রিকেট বোর্ড তো মহাত্মা গান্ধির তিন বাঁদরের মতো হয়ে গিয়েছিল।

এসব কথা অপছন্দ হলে অনেকে তূণ থেকে ব্রহ্মাস্ত্র ভেবে বার করবেন সেই বাক্য— সাম্প্রদায়িকতা আর বর্ণবিদ্বেষ কি এক জিনিস নাকি? এ নিয়ে একটা সূক্ষ্ম তর্ক হতে পারে বটে, তবে সে-সবে যাচ্ছি না। না হয় বর্ণবিদ্বেষের কথাই হোক। বলুন তো, আমাদের ক্রিকেট বোর্ড বর্ণবিদ্বেষের বিরুদ্ধে কবে কী ব্যবস্থা নিয়েছে? ২০২০ সালের ৮ জুলাই যখন অতিমারির মধ্যে আবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেট চালু হল, তখন ইংল্যান্ড আর ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্রথম টেস্টের প্রথম দিন খেলা শুরু হওয়ার আগে দু দলের ক্রিকেটাররা এক হাঁটু মুড়ে মুষ্টিবদ্ধ হাত আকাশের দিকে তুলে বর্ণবিদ্বেষের বিরুদ্ধে প্রতীকী প্রতিবাদ জানান। ততদিনে পৃথিবীর সব খেলার মাঠে ওটা দস্তুর হয়ে গিয়েছে। এই প্রতিবাদের প্রেক্ষাপটে আছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বর্ণবিদ্বেষী পুলিসের হাতে নিহত জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যু। ইংল্যান্ডের মাটিতে ওই টেস্ট ম্যাচের প্রায় আড়াই মাস পরে ১৯ সেপ্টেম্বর শুরু হয় ভারতীয় ক্রিকেটের বাৎসরিক মোচ্ছব— আইপিএল। সেখানে কিন্তু ওসব হাঁটু মুড়ে বসা-টসা হয়নি। ২৫ অক্টোবর মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের খেলোয়াড় হার্দিক পান্ডিয়ার যে কোনও কারণেই হোক (হয়তো তাঁর অধিনায়ক কায়রন পোলার্ড বলে) মনে হয় এমনটা করা উচিত, তাই তিনি রাজস্থান রয়ালসের বিরুদ্ধে অর্ধশতরানের পর হাঁটু মুড়ে বসেন। আইপিএল-এর গভর্নিং বডি বা ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড থেকে কোনও নির্দেশ আসেনি কিন্তু।

আচ্ছা বলুন তো, ভারতের সর্বকালের সেরা অধিনায়কদের একজনের হাতে থাকা বোর্ড ইশান্ত শর্মাকে কী শাস্তি দিয়েছে আজ অবধি? ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ আন্দোলন শুরু হওয়ার পর প্রাক্তন ওয়েস্ট ইন্ডিজ অধিনায়ক ড্যারেন স্যামি জানিয়েছিলেন, সানরাইজার্স হায়দরাবাদে একসঙ্গে খেলার সময় ইশান্ত তাঁকে ‘কালু’ বলে ডাকতেন। মানে জিজ্ঞেস করায় বলেছিলেন, ওটা নাকি আদরের ডাক। যদিও পরে স্যামি জানতে পেরেছিলেন, ওটা তাঁর চামড়ার রং নিয়ে ব্যঙ্গ। অভিযোগটা যে মিথ্যে নয় তার প্রমাণ হিসাবে পাওয়া গিয়েছিল ইশান্তের ইনস্টাগ্রাম পোস্ট। সোশাল মিডিয়ায় পোস্ট করা ছবিতেও ইশান্ত স্যামিকে ‘কালু’ বলেই উল্লেখ করেছিলেন। ইশান্ত এরপর স্যামির কাছে ব্যক্তিগতভাবে ক্ষমা চেয়ে নেন, কিন্তু বোর্ড কী ব্যবস্থা নিয়েছিল কেউ জানেন? ভারতের হয়ে একসময় আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলা অভিনব মুকুন্দ আর দোদ্দা গণেশও সেইসময় বলেছিলেন, খেলোয়াড় জীবনে গায়ের রং নিয়ে তাঁদের কটুকাটব্য হজম করতে হয়েছে। তারকাদের কেউ দুঃখপ্রকাশ করেছেন তার জন্য? বোর্ড দুঃখপ্রকাশ করেছে? শুধু তো কয়েকটা ভাল শব্দ। তা-ও খরচ করা যায়নি এই মানুষগুলোর জন্য! আজ যেমন সাকা, র‍্যাশফোর্ড, স্যাঞ্চোর জন্য ইংরেজদের বর্ণবিদ্বেষী বলে নিন্দা করছেন; সেদিন মুখে কুলুপ এঁটে থাকা বোর্ড আর তারকাদের একইরকম নিন্দা করেছিলেন?

অবশ্য এসব প্রশ্ন অবান্তর। এ দেশের মাটি বড়ই উদার। এখানে “কালো মেয়ের পায়ের তলায় দেখে যা আলোর নাচন” জনপ্রিয় হয়, আবার ফেয়ার অ্যান্ড লাভলিও রমরমিয়ে বিক্রি হয়।

https://4numberplatform.com/ এ প্রকাশিত

ক্রিকেটার তুমি কার?

এই দল আর ভারতের কৃষকদের হয়ে খেলে না। প্রবল অর্থনৈতিক মন্দায় গত এক বছরে যারা চাকরি খুইয়েছে, এ দল তাদেরও নয়।

১৯৯৯-এর জানুয়ারির শেষ সপ্তাহে কলকাতার আশেপাশে এ বারের মত হাড় কাঁপানো ঠান্ডা ছিল না। চেন্নাইতে অবশ্য বছরের কোন সময়েই ঠান্ডা বলে কিছু থাকে কিনা তা বিতর্কের বিষয়। সেখানকার চিপকে চলছিল ভারত বনাম পাকিস্তান টেস্ট ম্যাচ। ৩০শে জানুয়ারি, অর্থাৎ ম্যাচের তৃতীয় দিন, বিকেলে যখন খেলা শেষ হল তখন চতুর্থ ইনিংসে জয়ের জন্য ২৭১ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ভারতের দুই ওপেনার আউট, ক্রিজে রাহুল দ্রাবিড়। এবং আমাদের নয়নের মণি শচীন তেণ্ডুলকার। “জেতালে ও-ই জেতাবে” — সকলের এমনটাই ধারণা। ওয়াসিম আক্রাম, ওয়াকার ইউনিস, সাকলেন মুস্তাককে সামলে আর কে জেতাতে পারে? রাহুল বড়জোর ম্যাচ বাঁচাতে পারেন। আজহার পারেন না, এমনকি সৌরভ পারেন বলেও আমরা কেউ ভাবছিলাম না। পরদিন দেখা গিয়েছিল, আমরা ভুল ভাবছিলাম না।

আমরা মানে রামকৃষ্ণ মিশন বিদ্যামন্দিরের ছাত্ররা। বেলুড় মঠের ঠিক পাশেই আমাদের আবাসিক কলেজ; স্বামী বিবেকানন্দের নাকি স্বপ্ন ছিল এই কলেজ প্রতিষ্ঠা। কিন্তু আমাদের স্বভাব চরিত্র মোটেই অপাপবিদ্ধ ব্রহ্মচারীসুলভ ছিল না। আমরা বিলক্ষণ ক্লাস পালাতাম, স্টাডি আওয়ারে পাঁচিল টপকাতাম নানা কারণে। ক্রিকেট দেখা তার মধ্যে অবশ্যই একটা। ৩১শে জানুয়ারি ম্যাচের ফয়সালা হবে। সেদিন অবশ্য ক্লাস পালাবার দরকার ছিল না। কারণ দিনটা রবিবার। আমরা এক দঙ্গল সেদিন সকালেই হোস্টেল থেকে পলাতক। বেলুড় বাজারের আশেপাশে একগাদা ক্লাব। কোনটা সদ্যনির্মিত তৃণমূল কংগ্রেস প্রভাবিত, কোনটার বাইরে ঝোলে কাস্তে হাতুড়ি আঁকা লাল পতাকা। কোনটা অমুক গ্রামরক্ষী বাহিনী, কোনটা তমুক সংঘ। আমাদের মত হোস্টেল পালানো ক্রীড়ামোদীদের জন্য সকলেরই অবারিত দ্বার। কারণ পার্টি যার যার, ক্রিকেট সবার। ভারতীয় ক্রিকেটাররাও সবার।

সেদিন সকাল থেকে আবার বেলুড়ের সর্বত্র প্রবল বিদ্যুৎ বিভ্রাট। বামপন্থী আমি, আমার এক বিজেপি সমর্থক বন্ধু আর মোটের উপর অরাজনৈতিক জনা দুয়েক — এই চারজন টিভির খোঁজে এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্ত ছুটে চলেছি। এই এখানে বসে শচীনের স্কোয়ার কাট দেখে মুগ্ধ হচ্ছি, পরক্ষণেই দৌড়তে হচ্ছে অন্য কোথাও, কারণ কারেন্ট চলে গেছে। শুধু আমরা চারজন নয়, একযোগে দৌড়ে বেড়াচ্ছে আমাদের কলেজের বিভিন্ন ব্যাচের জনা পঞ্চাশেক। কেউ এ ক্লাবে অন্ধ ভি কে রামস্বামীর দুবার ড্রপ পড়া বলে সৌরভকে আউট দেওয়া দেখেছে, কেউ ও ক্লাবে দেখে বুঝেছে আজহারের এল বি ডব্লিউ সঠিক সিদ্ধান্ত ছিল না।

এইভাবে সারা দুপুর অক্লান্ত দৌড়াদৌড়ি করে আমরা শচীন আর নয়ন মোঙ্গিয়ার জুটিকে এগিয়ে নিয়ে গিয়েছি। ধর্মসঙ্কট উপস্থিত হল শচীন নব্বইয়ের ঘরে ঢুকে পড়ার পর। দেখা গেল গোটা এলাকা একসাথে বিদ্যুৎহীন। আমরা আক্ষরিক অর্থে পথে বসে পড়েছি। তারপর কোন একজন সিনিয়র ছুটতে ছুটতে এসে খবর দিল, ঐ মোড়ে কংগ্রেসের পার্টি অফিসে টিভি চলছে। সে রাস্তা থেকে দেখেছে। কিন্তু ওরা কি যাকে তাকে ঢুকতে দেবে? দল বেঁধে দৌড়নো হল ভারতের জাতীয় কংগ্রেসের অফিসের দিকে। একজন বুক ঠুকে দরজা দিয়ে মুখ বাড়িয়ে জিজ্ঞেস করল, কাকু, একটু খেলা দেখা যাবে? মাথা দোলানোর অপেক্ষা। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সদলবলে কংগ্রেস ত্যাগ করার পর অতগুলো ছেলে একত্রে সম্ভবত পশ্চিমবঙ্গের কোন কংগ্রেস অফিসে ঢোকেনি। কিন্তু আমি আর আমার বিজেপি বন্ধু ইতস্তত করছি। তখনো বামেদের সমর্থনে কেন্দ্রে ইউ পি এ সরকার হয়নি, বরং কয়েক বছর আগেই সিপিএমের তাত্ত্বিক নেতারা কংগ্রেসের সমর্থনে সরকারে যাবেন না জেদ করে জ্যোতি বসুর প্রধানমন্ত্রী হওয়া আটকে দিয়েছেন। সেই কংগ্রেস অফিসে ঢুকব? আমার বিজেপি বন্ধু আবার দাবি করে সে আসলে গুজরাটি, মাত্র কয়েক পুরুষ আগেই তার পূর্বপুরুষ গুজরাট থেকে বাংলায় এসেছিলেন। সবচেয়ে বিখ্যাত গুজরাটি মহাত্মা থেকে সোনিয়া পর্যন্ত সব গান্ধীকেই সে ঘৃণা করে। তাদের ছবিওলা পার্টি অফিসে সে ঢোকে কী করে? শেষ পর্যন্ত দুজনেই অবশ্য বুক ঠুকে ঢুকে পড়লাম। শচীন জিতে গেলেন, পতাকাগুলো হেরে গেল। কারণ ওগুলো বিভিন্ন দলের পতাকা, শচীনের হাতে যে ভারতের পতাকা।

ম্যাচটা অবশ্য শচীন জেতাতে পারেননি। শেষের দিকে পিঠের ব্যথায় কাবু হয়ে চটজলদি খেলা শেষ করার চেষ্টায় বেশি আক্রমণাত্মক হয়ে উইকেট দিয়ে আসেন। তাঁর চারজন টিমমেট মিলে বাকি এক মুঠো রান করে উঠতে পারেননি। সেই হারের ধাক্কা এত প্রবল ছিল যে আমরা অনেকেই সেদিন সন্ধ্যায় পড়াশোনা করতে পারিনি। কেউ কেউ রাতে খেতেও যায়নি ডাইনিং হলে। এই বিষাদ কেন? কারণ ভারতীয় ক্রিকেট দল সবার হয়ে খেলে। শচীন যখন ব্যাট করতেন, আমাদের সবার হয়ে ব্যাট করতেন। বিরাট কোহলি, অজিঙ্ক রাহানে, চেতেশ্বর পুজারা, ঋষভ পন্থ — সকলেই সব ভারতীয়ের প্রতিনিধি। এমনটাই আমরা জানতাম। এবার বোধহয় মেনে নিতে হবে, ভুল জানতাম। ওঁরা আসলে বি সি সি আই নামে এক প্রাইভেট কোম্পানির কর্মচারী। সে কোম্পানির মালিকানা এখন বিজেপি নেতা তথা দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সুপুত্র জয় শাহের হাতে। অতএব ক্রিকেটাররা এবং ক্রিকেট এখন কেবল বিজেপি আর তার সমর্থকদের। তা নাহলে ব্যতিক্রমহীনভাবে সকলে কৃষক আন্দোলন নিয়ে সরকারের পাশে দাঁড়িয়ে টুইট করতে যাবেন কেন? শুভমান গিল বাদে সকলেই তো এতদিন চুপ করে ছিলেন। এমনিতে তো এঁরা দেশের কোন ব্যাপারে মুখ খোলেন না, স্বর্গের দেবতাদের মত থাকেন। হঠাৎ এই বেলা একযোগে মর্ত্যে অবতরণের দরকার পড়ল কেন?

তথ্যের খাতিরে স্বীকার করতেই হয় যে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড ২০০৪ সালে দেশের সর্বোচ্চ আদালতকে বলেছিল, ভারতীয় ক্রিকেট দল হল “the official team of BCCI, not the official team of India”. কিন্তু তারপর আরব সাগর দিয়ে অনেক জল গড়িয়ে গেছে। সুপ্রিম কোর্ট রীতিমত কমিশন বসিয়ে বোর্ড ভেঙে দিয়ে অ্যাড হক কমিটি দিয়ে ভারতীয় ক্রিকেট চালিয়েছেন বেশ কিছুদিন। তারপর নতুন বোর্ড গঠন হয়েছে। এখন দেখা যাচ্ছে অভূতপূর্ব বদল হয়েছে। রাজনীতিবিদদের ক্রিকেট প্রশাসনে অংশগ্রহণ চিরকাল ছিল। মাধবরাও সিন্ধিয়া, এন কে পি সালভে, শরদ পাওয়ারের মত কংগ্রেস নেতারা বোর্ডের সর্বোচ্চ পদেও থেকেছেন। তা বলে স্টেডিয়ামের বাইরে অরুণ জেটলির মত তাঁদের বিশাল মূর্তি বসানো হয়নি। ক্রিকেটারদের দিয়ে সরকারের প্রচার চালানো হয়নি। এখন নোটবন্দি হতে না হতেই বিরাট কোহলি পণ্ডিতের মত বলে দেন স্বাধীন ভারতে এটাই সবচেয়ে বিপ্লবী পদক্ষেপ। পুলওয়ামা বিস্ফোরণ, যার তদন্তে সরকার আদৌ মাথা ঘামাল না, সেই বিস্ফোরণে নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে ভারতীয় দল খেলতে নামে আর্মি ক্যামোফ্লাজ ক্যাপ পরে। যদি তারপর ভারতীয় ক্রিকেটাররা বা অধিনায়ক বিরাট সরকারকে প্রশ্ন করতেন পুলওয়ামার শহীদদের মৃত্যুর জন্য কারা দায়ী তার তদন্ত হল না কেন? ধৃত দাবিন্দর সিং কেন জামিন পেল? তাহলে তবু ঐ শ্রদ্ধাজ্ঞাপনকে বিশ্বাস করা যেত। যেহেতু তা করা হয়নি, সেহেতু ভারতীয় ক্রিকেট দলকে সরকারী মুখপাত্র ছাড়া কিছু ভাবা শক্ত।

এই দল আর ভারতের কৃষকদের হয়ে খেলে না। প্রবল অর্থনৈতিক মন্দায় গত এক বছরে যারা চাকরি খুইয়েছে, এ দল তাদেরও নয়। কারণ তাদের সম্বন্ধে ক্রিকেটাররা টুইট করেন না। হঠাৎ লকডাউনে কাজ হারিয়ে যে প্রবাসী শ্রমিকরা কয়েকশো মাইল পায়ে হেঁটে বাড়ি ফিরেছেন, অনাহারে অর্ধাহারে বেঁচেছেন বা মারা গেছেন, তাঁদের নিয়ে টুইট করার সময়ও বাবুদের হয় না। যতই মহম্মদ সিরাজ বাবার মৃত্যু ভুলে থেকে প্রাণপণ বোলিং করে বিদেশের মাঠে জয়ের রাস্তা দেখান, এই দল নিজেকে ভারতের প্রান্তিক মানুষের প্রতিনিধি মনে করে কিনা তা-ও সন্দেহজনক। কারণ অস্ট্রেলিয়ায় নিজেদের ক্রিকেটাররা বর্ণবৈষম্যমূলক মন্তব্যের স্বীকার হওয়ার আগে পর্যন্ত এরা #BlackLivesMatter আন্দোলনের প্রতি কোন সমর্থন জানায়নি। জর্জ ফ্লয়েড কাণ্ডের পর শুরু হওয়া ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজে খেলোয়াড়রা এক হাঁটু মুড়ে মুষ্টিবদ্ধ হাত মাথার উপরে তুলে প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন, কিন্তু আই পি এল শুরু হয়েছিল ওসব ছাড়াই। ১৯ সেপ্টেম্বর আরম্ভ হওয়া প্রতিযোগিতায় ২৬ অক্টোবর হার্দিক পান্ডিয়া প্রথম ওভাবে প্রতিবাদ করেন, তাও একক প্রয়াসে। অথচ ভারত সরকারের যে কোন সিদ্ধান্ত সমর্থন করতে এই ক্রিকেটাররাই এক পায়ে খাড়া। সুতরাং এই ভারতীয় ক্রিকেট দলকে সেই ১৯৯৯-এর মত আমি আর আমার বিজেপি সমর্থক বন্ধু — দুজনেই নিজের দল বলে দাবি করতে পারি না বোধহয়। আমার মত লোকেরা এখন সেই বন্ধুর চোখে তো বটেই, ভারতীয় দলের ক্রিকেটারদের চোখেও দেশদ্রোহী।

আরো দুঃখের কথা, সেদিন যে ক্রিকেটারদের সাফল্যকে নিজেদের সাফল্য বলে আমরা মনে করতাম, যাঁদের ব্যর্থতায় আমরা কান্নায় ভেঙে পড়তাম, তাঁরাও আর আমাদের সকলের নন। বিরাট নাহয় বি সি সি আই-এর চাকুরে, শচীন তো তা নন। অনিল কুম্বলেও নন। তবু তাঁরা বাকি পৃথিবীর নিন্দার হাত থেকে সরকারকে বাঁচাতে এগিয়ে এসেছেন। সে কি এঁরা আম্বানিদের বেতনভুক কর্মচারী বলে? এই দুজনের বিতর্ক এড়িয়ে চলা কিন্তু জগদ্বিখ্যাত। শচীন তো বিতর্ক থেকে এতটাই দূরে থাকতে পছন্দ করতেন যে ম্যাচ ফিক্সিং কাণ্ডে অপরাধীদের শাস্তি হয়ে যাওয়ার পরেও বলেছিলেন তিনি নাকি ঐ ব্যাপারে কিছুই জানতেন না, কিছুই দ্যাখেননি। হঠাৎ মধ্যবয়সে এসে বিতর্কের ভয় উধাও! আর আমাদের প্রথম যৌবনের বিপ্লবী অধিনায়ক সৌরভ গাঙ্গুলির কথা যত কম বলা যায় তত ভাল। তিনি এখন শালগ্রাম শিলা। পদ ধরে রাখতে নিজের মেয়েকেও সোশাল মিডিয়া পোস্ট ডিলিট করতে বাধ্য করেন। অসুস্থ শরীরেও গতকাল শচীন, কুম্বলের টুইট রিটুইট করেছেন, কর্তব্যে অবহেলা নেই।

এতদিন জানতাম দুঃসময়ে বন্ধু চেনা যায়। দেখা গেল দুঃসময়ে আইকনও চেনা যায়।

https://nagorik.net/ এ প্রকাশিত। ছবি ইন্টারনেট থেকে।

%d bloggers like this: